টাকা ফিরিয়ে সারদা-মুক্তি চান মিঠুন

আমাদের নতুন সময় : 19/05/2015

mitunআন্তর্জাতিক ডেস্ক : সারদা গোষ্ঠীর বেআইনি ব্যবসার কথা আগে জানতে পারলে তিনি তাদের সঙ্গে কোনও চুক্তি করতেন না। জিজ্ঞাসাবাদের মুখে অভিনেতা-সাংসদ মিঠুন চক্রবর্তী তাদের এ কথা জানিয়েছেন বলে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি-র দাবি। সারদার কাছ থেকে নেওয়া সমস্ত টাকা ফেরত দিতে চান বলেও তদন্ত সংস্থাকে জানিয়েছেন মিঠুন। বেশ কিছু দিন সারদার চ্যানেলে ‘ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর’ হিসেবে কাজ করেছেন মিঠুন। এই বিষয়ে সারদার কর্ণধার সুদীপ্ত সেনের সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল তাঁর। ঠিক হয়েছিল, সারদার বিনোদন চ্যানেলে মোট ৫২টি এপিসোড বা পর্বে কাজ করবেন মিঠুন। তার মধ্যে প্রায় ৪০টি পর্বের শ্যুটিং হয়ে গিয়েছিল বলে জেনেছেন ইডি-র তদন্তকারীরা। মিঠুন তাঁদের জানিয়েছেন, ২৫টি পর্ব দেখানোও হয়েছিল টিভিতে। তার পরেই সারদার চ্যানেলটি বন্ধ হয়ে যায়। ইডি সূত্রের খবর, সম্প্রতি কলকাতায় এসেছিলেন মিঠুন। সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)-র এক ডেরায় ইডি অফিসারেরা তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এবং সেখানে বসেই লিখিত ভাবে টাকা ফেরতের কথা জানিয়ে দেন ওই অভিনেতা। তদন্ত সংস্থা সূত্রেই জানা গিয়েছে, সারদার সঙ্গে মিঠুনের চুক্তি হয়েছিল এক কোটি ৭৬ লাখ টাকার। তার মধ্যে আয়কর বাবদ ১৪ লাখ টাকা কেটে নিয়েছিল সারদা। পরে আবার ওই রোজগারের জন্য আলাদা করে আয়কর দেন মিঠুন। সেই সংক্রান্ত কাগজপত্রও তিনি ইডি অফিসারদের হাতে তুলে দিয়েছেন। সারদা গোষ্ঠীর আর্থিক কেলেঙ্কারি নিয়ে তোলপাড় চলছে কয়েক বছর ধরে। বিভিন্ন ক্ষেত্রের বেশ কিছু প্রভাবশালী লোকজনের মতো মিঠুন সারদার টাকা নিয়েছেন, এটাও আজকের কথা নয়। এত দিন পরে টাকা ফেরতের কথা কেন?
এই প্রশ্নের জবাবের জন্য রবিবার দফায় দফায় চেষ্টা করেও মিঠুনের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। এসএমএস করা সত্ত্বেও তিনি জবাব দেননি। তবে এ বার কলকাতায় এসে ইডি অফিসারদের মুখোমুখি হয়ে মিঠুন তাঁদের জানান, তিনি বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। তার মধ্যে সারদার চুক্তির জন্য এ-দিক সে-দিক ছুটতে গিয়ে তাঁর কাজের ক্ষতি হচ্ছে। ক্ষতি হচ্ছে তাঁর ভাবমূর্তিরও। সেই জন্যই তিনি টাকা ফেরত দিয়ে এই মামলা থেকে নিজেকে মুক্ত করতে চান। কর কেটে নেওয়ার পরে পাওয়া এক কোটি ৬২ লক্ষ টাকা তিনি চেক অথবা ‘ডিম্যান্ড ড্রাফ্ট’ মারফত ইডি-র কাছে ফেরত দিয়ে দেবেন। সারদা কেলেঙ্কারি ধরা পড়ার পরে ইডি বেশ কয়েক বার মিঠুনকে ডেকে পাঠিয়েছিল। তবে ইডি-র মুম্বইয়ের অফিসে এক বার জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হলেও এর আগে কলকাতায় তিনি ওই তদন্ত সংস্থার কাছে হাজির হননি। এ বার মহানগরে ইডি-র সামনে হাজির হয়েই সারদা-ঝামেলা থেকে মুক্তির ইচ্ছে প্রকাশ করেন তিনি এবং চুক্তিমাফিক পাওয়া যাবতীয় টাকা ফেরত দিতে চান। মিঠুনকে দৃষ্টান্ত হিসেবে খাড়া করে আরও টাকা উদ্ধারের পরিকল্পনা করছে ইডি। তদন্তকারীরা জানান, সারদা থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কারণে যাঁরা টাকা নিয়েছেন, মিঠুনের সদিচ্ছার কথা শুনিয়ে তাঁদেরও নেওয়া টাকা ফেরত চাওয়া হবে। এই তালিকায় রয়েছে তৃণমূলেরই অভিনেত্রী-সাংসদ অর্পিতা ঘোষ, চিত্রশিল্পী শুভাপ্রসন্ন ভট্টাচার্য প্রমুখের নাম। সারদার একটি চালু না-হওয়া সংবাদ চ্যানেলের এগ্জিকিউটিভ ডিরেক্টর হিসেবে কয়েক মাস কাজ করেছিলেন অর্পিতা। সেই পদাধিকারী হিসেবে তিনি সারদা থেকে যে-টাকা পেয়েছিলেন, তা তাঁকে ফেরত দিতে বলবে ইডি। অর্পিতার দাবি, ‘আমিই সকলের আগে বলেছিলাম, টাকা ফেরত দিয়ে দেব। চার মাসে বেতন হিসেবে তিন লক্ষ টাকার কিছু বেশি পেয়েছিলাম। ইডি যে-দিন বলবে, সে-দিনই সেই টাকা দিয়ে দেব। সারদা গোষ্ঠীর কাছে একটি সংবাদ চ্যানেল বিক্রি করেন শুভাপ্রসন্ন। তিনি তদন্তকারীদের জানিয়েছেন, চ্যানেল বিক্রি বাবদ সুদীপ্তের কাছ থেকে ছ’কোটি টাকা পেয়েছিলেন। ইডি সূত্রে জানানো হয়, টাকা ফেরত দিতে হবে শুভাপ্রসন্নকেও। এই বিষয়ে এ দিন এ নিয়ে শুভাপ্রসন্নকে ফোন করা হয়েছিল। কিন্তু প্রশ্নের সবটুকু না-শুনেই তিনি ফোন কেটে দেন। তার পরে আর তাঁকে পাওয়া যায়নি। ইডি-র অফিসারেরা জানিয়ে দিয়েছেন, কেউ টাকা ফেরত না-দিলে তাঁর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]