আজ থেকে ১৬২ ছিটমহলে জনগণনা

আমাদের নতুন সময় : 06/07/2015

citmoholকূটনৈতিক প্রতিবেদক : ভারত ও বাংলাদেশের ভেতরে থাকা দুই দেশের ১৬২টি ছিটমহলে যৌথ জনগণনা শুরু হচ্ছে সোমবার থেকে। চলবে ১৬ জুলাই পর্যন্ত। এর আগে ২০১১ সালে যৌথভাবে দুই দেশে সর্বশেষ জনগণনা হয়।

ভারতের ভূখণ্ডের ৫১টি বাংলাদেশি ছিটমহল আর বাংলাদেশের ভূখণ্ডে ১১১টি ভারতীয় ছিটমহল রয়েছে। দুই দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে ৭৫টি যৌথ দল এ জনগণনা করবে। এর মধ্যে ভারতের ভেতরে থাকা ছিটমহলে গণনা করবে ২৫টি দল। আর বাংলাদেশের ভেতরে থাকা ছিটমহলে গণনা করবে বাকিরা। এই জনগণনার ফল প্রকাশ করা হবে ২০ জুলাই।
এতে অংশ নিতে শনিবার ভারত থেকে বাংলাদেশে এসেছেন ৫৬ জন প্রতিনিধি। অন্যদিকে বাংলাদেশ থেকে ভারতে গেছেন ৩৬ জন প্রতিনিধি। এই জনগণনায় ২০১১ সালের পর কত শিশু জšে§ছে আর কতজন মারা গেছে তার তালিকা করা হবে। ২০১১ সালের জনগণনা অনুযায়ী, ভারতে থাকা বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলে আছেন ১৪ হাজার ২২১ জন বাংলাদেশি।
আর বাংলাদেশের ভূখ­ে থাকা ভারতের ১১১টি ছিটমহলে আছেন ৩৭ হাজার ৩৬৯ জন ভারতীয়। জনগণনার সময় কোনো স্বার্থান্বেষী চক্র যাতে বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে না পারে সে জন্য নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।
কোচবিহারের জেলা প্রশাসন থেকে ভারতে বসবাসকারী বাংলাদেশের ছিটমহলবাসীর উদ্দেশে এর আগে জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ৩১ জুলাই মধ্যরাত থেকে ভারতের ভেতরে থাকা সব বাংলাদেশি ছিটমহল ভারতের ভূখন্ড হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হবে। ২০১১ সালে দুই দেশের জনগণনা অনুযায়ী সব ছিটমহলবাসী এবং সেইসঙ্গে ওই জনগণনার পর যেসব শিশুর জš§ হয়েছে তারাও ভারতীয় নাগরিক হিসেবে বিবেচিত হবে। তবে যেসব ছিটমহলবাসী ভারত ছেড়ে বাংলাদেশে ফিরে যেতে চান না, তাঁদের ৬ জুলাই থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত দুই দেশের যৌথ জরিপকালে দুটি ফরম পূরণ করতে হবে। এই সময়ের মধ্যেই এক দেশ থেকে অন্য দেশে যেতে ইচ্ছুক ছিটমহলবাসীদের প্রয়োজনীয় ট্রাভেল পাস ইস্যু করা হবে।

এমআরপি নিয়ে শংকিত ২০ লাখ প্রবাসী
উম্মুল ওয়ারা সুইটি : মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) নিয়ে শংকায় এখনো ২০ লাখ প্রবাসী বাংলাদেশী। এবছরের ২৪ নভেম্বর থেকে এমআরপি ছাড়া কেউ বিমানে যাতায়ত করতে পারবেনা। এ নিয়ে আতংকে সময় পার করছেন বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশী শ্রমিকরা।
প্রবাসী কল্যান মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, এ পর্যন্ত এক কোটি ১০ লাখ মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) বিতরণ করা হলেও এখনও এমআরপির আওতার বাইরে রয়েছে প্রায় ১৭ লাখ পাসপোর্ট। তবে ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বরের মধ্যেই এসব হাতে লেখা পাসপোর্টকে এমআরপির আওতায় আনতে হবে।
সৌদি আরবের রিয়াদে কর্মরত প্রবাসী বাংলাদেশী সাহাবুদ্দিন বলেন, আমর জানা মতে সৌদিতে কর্মরত বাংলাদেশীরা খুব চিন্তায় আছেন। এখানে এখনো ১২/১৩ লাখ লোক এমআরপি পায়নি। দূতাবাস আর ঠিকাদার কোম্পানীর রেষারেষিতে এখানে অনেকদিন কাজ বন্ধ ছিলো। জরুরি ভিত্তিতে কাজটা করা উচিত।
ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট বিভাগের মহাপরিচালক (ডিজি) এম এন জিয়াউল আলম এই প্রতিবেদককে বলেন, আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান চলাচল সংস্থার মান অনুযায়ী ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বর থেকে বিমান যাত্রীদের সবার জন্য মেশিন রেডিবল পাসপোর্ট বহনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
২০১০ সালের ১ এপ্রিল পাসপোর্ট এমআরপিকরণ শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত এক কোটি ১০ লাখ বাংলাদেশি নাগরিককে এমআরপি পাসপোর্ট প্রদান করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে পাসপোর্টের ডিজি বলেন, নিরীক্ষা করে দেখেছি ইস্যুকৃত পাসপোর্টের সবগুলোর এমআরপি হয়নি। এর মধ্যে কিছু পাসপোর্ট দেশে রয়েছে, বিদেশেও রয়েছে কিছু। সব মিলিয়ে এ সংখ্যা প্রায় ১৭ লাখ।
তবে দেশে এমআরপিবিহীন পাসপোর্টধারীদের সংখ্যা খুব বেশি নয় বলে জানান তিনি। এছাড়া যে সব প্রবাসীর পাসপোর্ট এখনও এমআরপি হয়নি, তাদের অবশ্যই নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে এমআরপি করার তাগাদা দেন তিনি। তিনি বলেন, প্রবাসীদের মধ্যে এমআরপি পাসপোর্ট বিতরণে আমাদের যে টার্গেট দেওয়া হয়েছে, তা বাস্তবায়ন করতে পারবো। এ জন্য সবচেয়ে বেশি প্রবাসী বাংলাদেশি থাকা তিন দেশ মালয়েশিয়া, সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে পেশাদার প্রতিষ্ঠানকে পাসপোর্ট এমআরপি করণের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তবে দেশে যে সব প্রবাসী অবস্থান করছেন তারা যে কোন সময়ই সংশ্লিষ্ট পাসপোর্ট অফিস থেকে এমআরপি করে নিতে পারেন।
জানা গেছে, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা ৬২টি মিশনে এমআরপি দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। যে দেশে দূতাবাস নেই, সেখানকার প্রবাসীরা কাছাকাছি দেশে এসে পাসপোর্ট এমআরপি করে নিতে পারবেন।পাশাপাশি দূতাবাস না থাকা কোনো কোনো দেশে মোবাইল ইউনিট পাঠিয়েও পার্সপোট এমআরপি করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। সম্প্রতি আয়ারল্যান্ড ও ইউক্রেনে পাঠানো হয় এই মোবাইল ইউনিট।
প্রায় ১০ লাখ হাতে লেখা পাসপোর্টের মেয়াদ ২০১৮ সাল পর্যন্ত রয়েছে। বিদেশে যারা এ পাসপোর্ট নিয়ে অবস্থান করছেন তাদের দেশে ফিরে আসতে সমস্যা হবে না। তবে ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বরের পর বিমানে অন্য দেশ যেতে চাইলে অবশ্যই এমআরপি পাসপোর্ট প্রয়োজন হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]