সাপাহারে আমের দাম কম, চাষিরা হতাশ

আমাদের নতুন সময় : 11/06/2018

কাজী কামাল হোসেন, নওগাঁ : নওগাঁর সাপাহারে আমের দাম তুলনামূলকভাবে কম হওয়ায় হতাশ এ অঞ্চলের আম চাষিরা। গত বছর আম চাষ করে লাভের মুখ দেখলেও এ বছর লোকসান গুনতে হবে বলে আশঙ্কা করছেন তারা। আর এর কারণ হিসেবে উপজেলা প্রশাসনের আম পাড়া ও বাজারজাতকরণে নিষেধাজ্ঞাকে তারা দায়ি করছেন। এভাবে চলতে থাকলে আগামীবার অনেক চাষি আম চাষ থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। অনুসন্ধান ও সরেজমিনে আম চাষিদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গত বছরের তুলনায় আবহাওয়া অনেকটা অনুকূলে থাকায় এ বছর প্রচুর পরিমাণ গাছে মুকুল আসে। সেই সাথে প্রাকৃতিকভাবে গাছের পরিচর্যা করায় গাছে আশানুরূপ আমের ফলন হয়। তবে গত মৌসুমের মতো আম চাষে ফরমালিনের ব্যবহার ঠেকাতে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক কঠোর অবস্থানের ফলে চাষিরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে জানিয়েছেন। কারণ এ বছর তীব্র তাপদাহ ও গরম আবহাওয়ার কারণে সময়ের আগে গাছেই আম পাকতে শুরু করে। কিন্ত উপজেলা প্রশাসন থেকে আম চাষিদের ১ জুনের আগে এ উপজেলায় আম গাছ থেকে আম পাড়া ও বাজারজাতকরণের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ফলে প্রশাসন কর্তৃক জারি করা সময়ের আগেই গাছে গাছে আম পাকতে শুরু করে। কিন্ত, আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির ঘোষণার ফলে এ বছর গাছেই আম পেকে ঝরে পড়ে যায়। আর ১ জুনের পর সব আম চাষি এক সঙ্গে গাছ থেকে আম নামিয়ে বাজারজাত করতে গিয়ে প্রচুর আমদানির কারণে বাজারে আমের দাম নেমে যায়। ফলে আম চাষি ও বিক্রেতাদের লাভের জায়গায় ক্ষতির মুখ দেখতে হচ্ছে। সাপাহার উপজেলার এক আম চাষি জানান, এবারের গরমে তাপমাত্রা বেশি থাকায় সব ধরনের আম সময়ের আগেই পেকে গেছে। কিন্ত, বাজারে বিক্রি নিষিদ্ধ থাকার কারণে তা বাজারে তোলা যায়নি। এ কারণে অনেক আম পেকে নষ্ট হয়ে গেছে। আর এক সঙ্গে সব আম চাষি বাজারে আম তোলায় দাম অর্ধেকে নেমে এসেছে। গতকাল ১০ টায় সাপাহারের আম বাজার সহ কয়েকটি বাজার ঘুরে আম বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত বছর হিম সাগর আম মণ প্রতি বিক্রি হয়েছে ২০০০ থেকে ২৫০০ টাকা করে। যা এ বছর বিক্রি হচ্ছে ১০০০ হাজার থেকে ১২০০ টাকায়। গোপালভোগ গত বছর ১০০০ থেকে ১৬০০ টাকা, এ বছর ৬০০ থেকে ৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ল্যাংড়া গত বছর ২০০০ থেকে ৩৫০০ টাকা, এ বছর ১০০০ থেকে ১৩০০ পর্যন্ত। গুটি গত বছর ৫০০ থেকে ১৩০০, এবারে ৪০০ থেকে ৬০০ পর্যন্ত। এ বছর স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কেমিকেল দিয়ে ফল পাকানো রোধে ‘উপজেলা পর্যবেক্ষণ কমিটি’ গঠন করা হয়। আর এ বছর যেন আমচাষিরা ফরমালিন মিশাতে না পারেন সে কারণেই ১ জুন পর্যন্ত আমপাড়া ও বাজারে বিক্রি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো স্থানীয় প্রশাসন।

এ ব্যাপারে সাপাহার উপজেলা কৃষি অফিসার এএফএম গোলাম ফারুক হোসেন বলেন, ‘এখানে তুলনামূলকভাবে আমের দাম অনেক কম। বাজারজাতের সমস্যার কারণে ভালো ফলন হলেও দাম পাচ্ছেন না চাষিরা। তাছাড়া রমযান মাস হওয়ায় এ বছর ঢাকা-চট্টগ্রাম সহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক পাইকারি না আসায় আমের দাম কম পাচ্ছেন চাষীরা। তবে রমযান মাসের পর আমের দাম বাড়তে পারে বলেও জানান তিনি। তিনি আরো জানান, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে চাষিদের আম চাষের জন্য উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে এবং মাঠপর্যায়ে কর্মকর্তারাও সব সময় পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। বিষয়গুলো নিয়ে সাপাহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কল্যাণ চৌধুরীর সাথে কথা বললে তিনি জানান, ফরমালিনবিহীন আম জনগণকে খাওয়ানোর জন্য উপজেলা প্রশাসন এ সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো। এ বছর তা কোনো ব্যবসায়ী করতে পারেনি। ফরমালিনবিহীন আম জনগণকে খাওয়ানোর জন্য এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]