রাজধানীতে আ.লীগ নেতা হত্যার নেপথ্যে ডিশ ব্যবসা ও চাঁদাবাজি

আমাদের নতুন সময় : 19/06/2018

মাসুদ আলম: রাজধানীর উত্তর বাড্ডা এলাকায় ডিশ ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, চাঁদাবাজি, রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের জেরে আওয়ামী লীগ নেতা ফরহাদ হোসেন (৫০) খুন হয়েছে বলে ধারণা পুলিশের। তিনি বাড্ডা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। খুনিরা পালিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে পুলিশকে লক্ষ করে গুলি ছোড়ে। এ ঘটনায় ২ জনকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। তবে ঘটনার চারদিনেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।
জানা গেছে, উত্তর বাড্ডা, আলীর মোড় ও পূর্বাঞ্চল এলাকার একটা অংশ র্দীঘদিন ধরে ডিশ ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করে আসছিল দুলাল নামে একজন। ২০০৯ সাল থেকে দুলালের ব্যবসার ৪০ ভাগ নিয়ে যায় ফরহাদ। এছাড়া ডিশ ব্যবসা নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে ফরহাদের সঙ্গে একটি গ্রুপে সঙ্গে বিরোধ চলছিল। গুলশান বিভাগের ডিসির কার্যালয়ে তার বিরুদ্ধে এ বিষয়ে অভিযোগও ছিল। পরে এনিয়ে একাধিক বৈঠক হলেও ডিশ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা নেয়া বন্ধ করেননি তিনি। এছাড়া স্থানীয়ভাবে চলাচলকারী অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহন থেকে প্রাপ্ত চাঁদার ভাগাভাগি নিয়েও তার সঙ্গে বিরোধীদের দ্বন্দ্ব ছিল। এসব কারণেই কোনো একটি পক্ষ তাকে হত্যা করে থাকতে পারে বলে ধারণা তদন্ত সংশ্লিষ্টদের। গত শুক্রবার দুপুরে উত্তর বাড্ডার আলীর মোড় এলাকার পাশে পূর্বাঞ্চল ১ নম্বর লেন সংলগ্ন বায়তুস সালাম জামে মসজিদে জুমার নামাজ পড়েন ফরহাদ হোসেন। নামাজ শেষে বেরিয়ে আসার পরই দুর্বৃত্তরা তাকে গুলি করে হত্যা করে। তিনি উত্তর বাড্ডা মিশ্রীটোলার স্থায়ী বাসিন্দা। বাসার পাশেই সাঁতারকুল রোডে তার একটি ব্যক্তিগত অফিস রয়েছে।
পুলিশের বাড্ডা জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি) মো. আশরাফুল করিম বলেন, ধারণা করা হচ্ছে চাঁদাবাজির দ্বন্দ্বে খুন হয়েছে ফরহাদ। তাকে হত্যা করে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় পালিয়ে যায় খুনিরা। বাড্ডা-গুলশান লিংক রোডে পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে সিএনজিটি থামানো হয়। পুলিশের তল্লাশির সময় একজন সিএনজি থেকে নেমে সামনে চলে যায়। তখন তাকে ডাক দেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই সে পুলিশকে লক্ষ করে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়ে দ্রুত সিএনজিযোগে পালিয়ে যায়। সিএনজিতে থাকা দুজনই পেশাদার খুনি। সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহের পর তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। মরদেহের সুরতহাল করা বাড্ডা থানার এসআই শহীদুল ইসলাম বলেন, ফরহাদের ডান গাল, বাম চোখ বরাবর, মাথার ওপরে বাম দিক এবং ঘাড়ের বাঁ দিকে মোট চারটি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]