আশীর্ব্বাদ না ইটের টুকরো?

আমাদের নতুন সময় : 24/06/2018

ম্যাক্ডোনাল্ড মিঠুন বৈরাগী

‘আমি সদাপ্রভুর আকাঙ্খা করিব,…এবং তাঁহার অপেক্ষায় থাকিব। যিশাইয় ৮:১৭ পদ।
রাজেন মিস্ত্রি, আঠারো ফুট উঁচু একটা দেয়ালের উপর কাজ করার সময় সমস্যার সম্মুখীন হওয়ায় তার পরামর্শের দরকার ছিল
সে ফোরম্যানকে ডাকলো।
কোন সাড়া পেল না।
রাজেন নিজে মনে করল, ‘রাস্তায় খুব শব্দ, তার মনোযোগের জন্য আমি কি করতে পারি? সে আরো জোরে চিৎকার করে ডাকলো। তবুও কোন সাড়া নেই।
দেখি একটা দশ পয়সা নিচে ফেলে, কারও গায়ে পড়লে নিশ্চয় সে উপরের দিকে তাকাবে, তখন তাকে আমার জন্য ফোরম্যানকে ডাকতে বললেই হবে।
রাস্তার পাশে উঁচু দেয়ালের উপর বসে ভাবছে কার মাথায় পয়সাটা ফেলা যায়।
‘ঐ লোকটার মাথায়। না সে খুব ব্যস্ত। আর ঐ ছোট মেয়েটা আমার কথা বুঝবে না। হ্যাঁ ঐ ছেলেটার উপর ফেলি সে আমাকে সাহায্য করতে পারবে। ‘সাবধানে সে ছেলেটার মাথার উপর দশ পয়সাটা ফেলল। পয়সাটা লাফ দিয়ে পথে পড়ল। রাজেন মিস্ত্রি অপেক্ষা করল কখন ছেলেটা উপরের দিকে তাকাবে, কিন্তু ছেলেটা পয়সাটা কুড়িয়ে নিয়ে পকেটে রেখে, তার পথে চলে গেল।
মিস্ত্রি হতাশ হল। ভাবল ‘যদি একটা পঞ্চাশ পয়সা ফেলি, তা হলে হয়তো কেউ উপরের দিকে তাকাবে। সে পকেটের ভিতর থেকে একটা আধূলি খুঁজে বের করে একজন পথিকের গায়ে ছুঁড়ে মারল। ফল হল আগের মত। পথিক উপরে না তাকিয়ে পয়সাটা কুঁড়িয়ে নিয়ে নিজের পথে চলে গেল।
রাজেন ক্ষেপে গেল। ‘ষাট পয়সা শুধু শুধু নষ্ট হল! ঠিক্ আছে। আকাশের থেকে পয়সা পড়লে উপরে তাকায় না। এবার এমন কিছু ফেলব, না তাকিয়েই পারবে না’। সে একটা ইট কেটে আধলা করল। এবার যখন আধলাটা রাস্তার উপর পড়ল তখন সবাই উপরের দিকে তাকালো, আর ফোরম্যানকেও পাওয়া গেল। এইভাবে যখন সবকিছু স্বাভাবিক ভাবে চলে আমরা বাস্তবিকই যীশুর বিষয়ে ভুলে যাই। আমাদের মনে হয় প্রত্যেকদিন ঈশ্বরের সাথে কিছু সময় কথা বলার সময় থাকে না। উপর থেকে তিনি যে কোন আশীর্ব্বাদ বর্ষণ করেন তাইই নিয়ে আমরা জীবন পথে দ্রুত হেঁটে চলি। ‘সদাপ্রভুর আকাঙ্খা…অপেক্ষায়’ থাকতে ঈশ্বরকে যেন ইটের আধলার মত কোন দুঃখ কষ্ট দিয়ে আঘাত করতে না হয়। (সংগৃহীত)




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]