• প্রচ্ছদ » আমাদের বিশ্ব » বিশ্বে নারী নির্যাতনের শীর্র্ষে ভারত এরপর আফগানিস্তান, সিরিয়া, সোমলিয়া এবং সৌদিআরব


বিশ্বে নারী নির্যাতনের শীর্র্ষে ভারত এরপর আফগানিস্তান, সিরিয়া, সোমলিয়া এবং সৌদিআরব

আমাদের নতুন সময় : 27/06/2018

লিহান লিমা: বিশ্বে নারী নির্যাতনে পাকিস্তানকে পিছনে ফেলে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে ভারত। সোমবার প্রকাশিত থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশনের এই জরিপে শীর্ষ পাঁচে ভারতের পরই অবস্থান করছে আফগানিস্তান, সিরিয়া, সোমলিয়া এবং সৌদিআরব। থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশন ৭ বছর আগে ২০১১ সালে প্রথম পরিচালিত সমীক্ষায় নারীদের বসবাসের জন্য বিপদজনক দেশ হিসেবে এক নম্বরে ছিল আফগানিস্তান। পাকিস্তান ছিল ৩ নম্বরে। ভারত ছিল ৪ নম্বরে। কিন্তু ৭ বছর পরে ভারতের অবস্থান শীর্ষে। এই মুহূর্তে ভারতের পরে আফগানিস্তান। বর্তমানে পাকিস্তানের অবস্থান ৬।
এই শীর্ষ ১০ দেশের মধ্যে মানব পাচারের ক্ষেত্রে নারীর জন্য সবচেয়ে বিপজ্জনক দেশের তালিকায় আছে ভারত, লিবিয়া এবং মিয়ানমার। প্রতি বছর বৈশ্বিক মানবপাচারের বাণিজ্য প্রায় ১৫ হাজার কোটি ডলারের। প্রতি বছর ভারতে মানব পাচার অন্যতম চ্যালেঞ্জ। ২০১৬ সালে ভারতে এই পাচারের মামলার সংখ্যা রেকর্ড করা হয়েছিল ১৫ হাজার। এর মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশই নারী। যাদের অনেকের বয়স ১৮ বছরের নিচে। গত সপ্তাহে মানব পাচার রোধে সচেতনতা সৃষ্টির প্রচারণা করতে গিয়ে বন্দুকের মুখে ধর্ষণের শিকার হন ৫ নারী অধিকার কর্মী।
ভারতের জাতীয় অপরাধ ব্যুরো জানায়, ‘প্রতিদিন গড়ে ১০০টি নারী নির্যাতনের অভিযোগ উঠে আসে। ২০১২ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত নারী প্রতি সহিংসতা ৪০ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রায় ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৯৫৪ জন নারী ধর্ষণ, যৌন নির্যাতন, এসিড হামলা ও যৌতুকের শিকার হয়েছেন।’ এছাড়া সরকারি হিসেবে দেখা যায়, ২০০৭ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ভারতে নারীর প্রতি সহিংসতা বৃদ্ধি পেয়েছে ৮৩ ভাগ। দেশটিতে প্রতি ঘণ্টায় ৪টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।
এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর ভারতের কংগ্রেসের সভপতি রাহুল গান্ধী বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী যখন ইয়োগা ভিডিও প্রমোট করতে ব্যস্ত ঠিক তখনই, আফগানিস্তান, সিরিয়া এবং সৌদি আরবের মত নারীর প্রতি সহিংস দেশের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে ভারত। কি লজ্জাজনক!’

এই ফাউন্ডেশনটি জানায়, বিশ্বব্যাপি ৭০ কোটি নারী ও শিশু ১৮ বছর বয়সের আগেই বিয়ের পিড়িতে বসে। বাল্যবিয়ে বিশ্বব্যাপি এখনো অন্যতম ব্যাধি, যা অকালে মাতৃত্বের মত স্বাস্থ্যহানির কারণ।
যদিও সৌদি আরব এ তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছে তবে নারীর অর্থনৈতিক প্রবেশাধিকার, কাজের স্থান ও সম্পত্তির অধিকারের বৈষম্যের দিক দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। এছাড়া, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় চর্চার দিক দিয়ে সৌদি নারীরা যে ঝুঁকি মোকাবেলা করেন তাতে দেশটির অবস্থান পঞ্চম। অন্যদিকে থমসন রয়টার্সের করা সমীক্ষার ১০টি দেশের মধ্যে ৯টি দেশই এশিয়ার। বাইরের একটি মাত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্র। রয়টার্স।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]