নামাজের অপরিহার্যতা এবং ফজিলত

আমাদের নতুন সময় : 09/11/2018

মুনশি মুহাম্মদ আবু দারদা

 

নবি করিম (সা.) ইরশাদ করেছেন, ইসলামের ভিত্তি পাঁচ জিনিসের উপর। এক. তাওহিদ এবং রেসালতে বিশ্বাসী। দুই. নামাজ পড়া। তিন. জাকাত আদায় করা। চার. রমজানের রোজা রাখা। পাঁচ. সমর্থ থাকলে হজ করা। রাসুল সা. বলেন, বলো দেখি যদি কোন ব্যক্তির দরজার সামনে একটি নহর প্রবাহিত থাকে, যাতে সে প্রতিদিন পাঁচবার গোসল করে, তবে তার শরীরে কি কোন ময়লা থাকবে? সাহাবাগণ আরজ করলেন, কিছুই বাকি থাকবে না। নবী সা. বললেন, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের অবস্থাও এরকমই যে, আল্লাহ তায়ালা তার বদৌলতে গুনাহসমূহ মিটিয়ে দেন। (জামেউত তিরমিজী, হাদীস নং ২৮৬৮, বুখারী শরীফ হাদীস নং ৫০৫, মুসলিম শরীফ হাদীস নং ১৫৫৪) হযরত আবু যর রাযি. হতে বর্ণিত, রাসূল সা. একদিন শীত সকালে বের হলেন, তখন গাছের পাতা ঝরছিল। তিনি একটি গাছের ডাল ধরলেন। ফলে এর পাতা আরো বেশী ঝরতে লাগল। তিনি বললেন, হে আবু যর! আমি বললাম উপস্থিত হে আল্লাহর রাসূল! তিনি বললেন, মুসলিম বান্দা যখন ইখলাসের সাথে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য নামাজ পড়ে তখন তার গুনাহসমূহ এমনভাবে ঝরে পড়ে যেমন এই গাছের পাতা ঝরে পড়ছে। (মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং ২১৫৫৬) রাসূল (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজকে এরূপ পাবন্দির সাথে আদায় করে, ওজু ও সময়ের এহতেমাম করে, রুকু সেজদা উত্তমরূপে আদায় করে এবং এইরূপ নামাজ আদায় করাকে নিজের উপর আল্লাহর হক মনে করে তবে জাহান্নামের আগুনের জন্য তাকে হারাম করে দেয়া হবে। (মুসনাদে আহমদ, হাদিস নং ১৮৩৭২) অতএব আসুন, আমরা নামাজের মাধ্যমেই নিজেদের আত্মা ও দেহমন পরিশোধিত করে ফেলি। সর্বপ্রকার অন্যায়-অপকর্ম ও লজ্জাজনক কাজ-কর্ম থেকে নিজেদের বিরত রাখি।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : info@amadernotunshomoy.com