সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধা হতে পারে ইভিএম

আমাদের নতুন সময় : 28/11/2018

মোহাম্মাদ জুবায়ের : অনেক আলোচনা সমালোচনার মধ্যেই প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা নিশ্চিত করেছেন, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৬টি আসনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে।

রাজনৈতিক দলের সাথে নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে শুধু সরকারপন্থী দলগুলোই এই নির্বাচনে ইভিএম-এর ব্যবহারকে সমর্থন করেছে। বিএনপিসহ সরকারবিরোধী দলগুলো ইভিএম ব্যবহারের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে।

ইভিএম প্রক্রিয়ায় ভোটের যে সমালোচনা হচ্ছে, তার একটি মূল কারণ হলো, নির্বাচন কমিশনের পূর্ববর্তী পরিকল্পনার বিপরীতে যাওয়া। বছরের শুরুতেই নির্বাচন কমিশন একটি খসড়া পরিকল্পনা প্রণয়ন করে, যেখানে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) বা ডিজিটাল ভোটিং মেশিনের (ডিভিএম) মাধ্যমে ভোটের কোন উল্লেখ ছিল না। যার ফলে নির্বাচন কমিশনের আগের সিদ্ধান্তের সাথে এখনকার সিদ্ধান্তের দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে। যদিও নির্বাচন কমিশন যে কোনো ধরনের যান্ত্রিক ত্রুটি না হওয়ার বিষয়ে নিশ্চয়তা দিয়েছে, তবুও সকল দলের মতামত উপেক্ষা করে এই সিদ্ধান্ত নেয়াটিকে সমালোচনা করছে নাগরিক সমাজ।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চেয়ারম্যান ডঃ কামাল হোসেন ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন যে, এই নির্বাচনে ইভিএমের ব্যবহার করা হলে তিনি নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে মামলা করবেন।

ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্তটিকে রাষ্ট্রদ্রোহিতা হিসাবে আখ্যায়িত করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের মহাসচিব আ স ম আব্দুর রব বলেছেন, সংবিধানের ৬৫ নং অনুচ্ছেদে পরিষ্কারভাবে উল্লেখ আছে যে, নির্বাচন ও ভোটে সরাসরি মানুষের সংস্পর্শ থাকতে হবে; যা ইভিএম-এর মাধ্যমে লঙ্ঘিত হবে।

নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব ন্যায্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য কাজ করা, যেটি কঠিন হয়ে ওঠার সম্ভাবনা থাকছে এই নতুন উপায়ে ভোট দেয়ার ব্যবস্থার কারণে। যদিও এটি শুধু মাত্র ৬টি আসনে ব্যবহার করা হবে তবুও এর মাধ্যমে তৈরি হওয়া ঝুঁকি পুরো নির্বাচনকে ভঙ্গুর করে দিতে পারে। তাছাড়া, সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইভিএম-এর ব্যবহার একেবারেই সন্তোষজনক ছিলো না, যা আরেকটি কারণ হতে পারে এই প্রক্রিয়ায় নির্বাচন না করার।

পারিপার্শ্বিক সকল দিক বিবেচনা করে এটি বোঝা যায় যে, নির্বাচন কমিশন এমন একটি পদ্ধতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে; যা একটি সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধা হতে পারে। লেখক : বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ল এন্ড ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স- বিলিয়া’র সহকারী গবেষক। মূল ইংরেজী থেকে অনূদিত এবং সংক্ষেপিত। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]