জবিতে তীব্র সেশন জট, সংশয়ে শিক্ষার্থীরা

আমাদের নতুন সময় : 07/12/2018

জয়নুল হক : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) বিভিন্ন অনুষদের অন্তর্গত বেশির ভাগ বিভাগসমুহে তীব্র সেশন জটের সৃষ্টি হয়েছে। কোন কোন বিভাগের তীব্র সেশন জটের ফলে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করা নিয়েও অনিশ্চয়তায় ভুগছে শিক্ষার্থীরা। বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা দাবি করেন, সেশন জটের কারণে ছয় মাস সময়ের এক সেমিস্টার শেষ করেতে সময় লাগছে আট থেকে দশ মাস। যার ফলশ্রুতিতে শিক্ষার্থীদের চার বছর মেয়াদী স্নাতক (সম্মান) এবং স্নাতকোত্তর শেষ করতে যথাক্রমে পাঁচ থেকে সাত বছরেরও বেশি সময় লাগছে। এতে করে নানা ধরণের বিপত্তির সম্মুখীন হতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। তাদের অভিযোগ একাডেমিক রুটিন অনুযায়ী ক্লাস-পরীক্ষা নিতে শিক্ষকদের অপারগতা ও অনীহা, সান্ধ্যকালীন কোর্সের দিকে বেশি মনোনিবেশ করা এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস নিতে ব্যস্ত থাকা এবং ক্লাসরুম সংকটের কারণে সেশনজট আরো তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে।  শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন বিভাগ নাট্যকলায় সেশন জটের অবস্থা বেশি নাজুক। এ বিভাগে শিক্ষক ও কর্মকর্তা সংকট থাকার কারণে শিক্ষার্থীরা সেশন জটে ভুগছেন । বিভাগটিতে দীর্ঘদিন ধরে সেকশন অফিসার না থাকায় বিভাগের প্রশাসনিক কাজও শিক্ষকদের করতে হয়। নবীণ শিক্ষকরা পরীক্ষা সংক্রান্ত কার্যাবলী ও প্রশাসনিক কাজে দক্ষ না হওয়ায় বিভাগটির একাডেমিক কার্যক্রম ধীর গতিতে চলছে। নাট্যকলা বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা দেড় বছর পিছিয়ে এখনো ৭ম সেমিস্টারে ক্লাস করছেন। ২০১৪-১৫ ও ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা ১ বছর পিছিয়ে যথাক্রমে ৬ষ্ঠ ও ৫ম সেমিস্টারে ক্লাস করছেন। ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরাও ইতোমধ্যে ৬ মাস পিছিয়ে পড়েছে। এ বিভাগের শিক্ষার্থীদের ছয় মাস মেয়াদী সেমিস্টার শেষ করতে আট মাস সময় লাগছে। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ সেমিস্টারের নির্ধারিত ক্রেডিট ক্লাস শেষ হলেও পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হচ্ছে না। এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য বরাবর কয়েকবার লিখিতভাবে জানানো হলেও সমস্যার সমাধান মেলেনি।

 

 

এছাড়া বিভাগটিতে ক্লাসরুম সংকটের কারণে এক ব্যাচের পরীক্ষা হলে অন্য ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ক্লাস বন্ধ করে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এজন্যও শিক্ষার্থীরা বিভাগটির সেশনজটের ভোগান্তিতে পড়ছে । বিশ্ববিদ্যালয়ে ইুরেজি বিভাগের সেশন জট সবচেয়ে বেশি। এ বিভাগের ক্লাস পরীক্ষায় কোন ধরনের একাডেমিক রুটিনই মানা হয় না। শিক্ষকরা ইচ্ছানুযায়ী ক্লাস নেন। এ বিভাগের সেমিস্টারের এক মিডটার্ম পরীক্ষায় সময় দিয়ে তিন থেকে চারবার সময় পেছানোর অভিযোগও আছে। ফলে বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা ১ বছর জটে এখনও মাস্টার্স ১ম সেমিস্টারের ফল দেয়নি, ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা সাত মাস জটে মাস্টার্স ১ম সেমিস্টারে, ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরাও এক বছর জটে এখন স্নাতক ৬ সেমিস্টারের ফল না দেওয়ায় ৭ম সেমিস্টার পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা হচ্ছে না। ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় চলমান অন্যান্য ব্যাচগুলোর সাথে পিছিয়ে পড়ছেন প্রায় সাত মাস। বিভাগটির প্রতি শিক্ষাবর্ষের ছয় মাস মেয়াদী এক সেমিস্টার শেষ করতে গড়ে আট মাস করে সময় লাগছে। কিন্তু ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে চালু হওয়া ইুরেজি বিভাগের সান্ধ্যকালীন কোর্সের চিত্র উল্টো। অভিযোগ রয়েছে, শিক্ষকরা নিয়মিত শিক্ষার্থীদের নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষা না নিয়ে সান্ধ্যকালীন কোর্সের ক্লাস পরীক্ষায় ব্যস্ত। এছাড়া অধিকাংশ শিক্ষকই রাজধানীর বিভিন্ন প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের খন্ডকালীন চাকরি করেন।

২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষ থেকে চালুকৃত বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন নামে ওপর বিভাগটির অবস্থাও ভয়াবহ। বিভাগটির প্রথম ব্যাচ ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা এক বছর ও ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা প্রায় ৭ মাস পিছিয়ে ক্লাস করছেন। ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের ১ম সেমিস্টার ১১ মাসে শেষ করে সবেমাত্র ২য় সেমিস্টারের ক্লাস শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা দেড় বছরের জটে রয়েছেন। তাদের এখনো মাস্টার্স ২য় সেমিস্টারের পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা হয়নি। বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা প্রায় ৮ মাস পিছিয়ে ক্লাস করছেন। রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের এক বছরের জটের ফলে বিভাগটিতে মাস্টার্স পর্যায়ে একই সঙ্গে তিনটি ব্যাচের ক্লাস হচ্ছে।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]