আহার গ্রহণেই ব্যক্তির গুণের প্রকাশ

আমাদের নতুন সময় : 29/12/2018

কৃষ্ণকান্ত রৈাগী

শ্রীমদভগবদগীতা ১৭.৭ তে শ্রী কৃষ্ণ বলেছেন “আহারস্ত্বপি সর্বস্য ত্রিবিধো ভবতি প্রিয়ঃ” অর্থাৎ সকল মানুষের আহারও তিন প্রকার প্রীতিকর হয়ে থাকে।
আয়ুঃসত্ত্ববলারোগ্যসুখপ্রীতিবিবর্ধনাঃ ।
রস্যাঃ স্নিগ্ধাঃ স্থিরা হৃদ্যা আহারাঃ সাত্ত্বিকপ্রিয়াঃ ॥
অর্থাৎ “যেসমস্ত আহার আয়ু, সত্ত্ব, বল, আরোগ্য, সুখ ও প্রীতি বর্ধনকারী এবং রসযুক্ত, স্নিগ্ধ, স্থায়ী ও মনোরম, সেগুলি সাত্ত্বিক লোকদের প্রিয়”
অতএব উক্ত গুণাবলি যুক্ত খাবার গ্রহণের লক্ষণ দেখে সাত্ত্বিক গুণ সম্পন্ন ব্যক্তিকে চেনা যায়।
কট্বম্ললবণাত্যুষ্ণতীক্ষ্ণরুক্ষবিদাহিনঃ ।
আহার রাজসস্যেষ্টা দুঃখশোকাময়প্রদাঃ ।।
অর্থাৎ “যেসমস্ত আহার অতি তিক্ত, অতি অম্ল, অতি লবণাক্ত, অতি উষ্ণ, অতি তীক্ষ্ম, অতি শুষ্ক, অতি প্রদাহকর এবং দুঃখ, শোক ও রোগপ্রদ, সেগুলি রাজসিক ব্যক্তিদের প্রিয়”
অতএব উক্ত গুণাবলী যুক্ত খাবার গ্রহণের লক্ষণ দেখে রাজসিক গুণ সম্পন্ন ব্যক্তিকে চেনা যায়।
যাতযামং গতরসং পূতি পর্যুষিত চ যৎ ।
উচ্ছিষ্টমপি চামেধ্যং ভোজনং তামসপ্রিয়ম ।।
অর্থাৎ “আহারের এক প্রহরের অধিক পূর্বে রান্না করা খাদ্য, যা নীরস, দুর্গন্ধযুক্ত, বাসি এবং অপরের উচ্ছিষ্ট দ্রব্য ও অমেধ্য দ্রব্য, সেই সমস্ত তামসিক লোকদের প্রিয়”
অতএব উক্ত গুণাবলী যুক্ত খাবার গ্রহণের লক্ষণ দেখে তামসিক গুণ সম্পন্ন ব্যক্তিকে চেনা যায়।
এখানে অবশ্য মনে রাখতে হবে সে যে খাবার হোক বা যে গুণ সম্পন্ন ব্যক্তি কেউই ছোটা বা বড় নয়। কারণ ঈশ্বর স্বংয় এই ৩টি গুণের আধারে এই ব্রহ্মা- তৈরি করেছেন আর পৃথিবীতে সংসাররূপী রথকে চালানোর জন্য এই ৩ গুণ সম্পন্ন ব্যক্তিদের প্রয়োজন, তা অবশ্যয় কর্মবিভেদে। এই নিয়ে শ্রী কৃষ্ণ বলেছেনÑ
সত্ত্বানুরূপা সর্বস্য শ্রদ্ধা ভবতি ভারত।
শ্রদ্ধামেয়োহয়ং পুরুষো যো যচ্ছ্রদ্ধঃ স এব সঃ॥
“হে ভারত! সকলের শ্রদ্ধা নিজ নিজ অন্তঃকরণের অনুরূপ হয়। যে যেই রকম গুণের প্রতি শ্রদ্ধাযুক্ত, সে সেই রকম শ্রদ্ধাবান”। লেখক: ব্যাংক কর্মকর্তা




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]