অগ্নিগর্ভ ত্রিপুরা

আমাদের নতুন সময় : 11/01/2019

সন্তোষ ভট্টাচার্য, আগরতলা থেকে

 

বাম ও বিভিন্ন অবিজেপি সংগঠনের ডাকে জানুয়ারি ৮ ও ৯ তারিখের ধর্মঘটে বিজেপি শাসিত ত্রিপুরায় ব্যাপক সাড়া মেলে। সরকারি সচিবালয় ও কিছু সরকারি সংস্থা জোর করে খোলা রাখা হয় বটে; কিন্তু দোকানপাট, সড়ক পরিবহনব্যবস্থা, এমনকি ব্যাঙ্কিং পরিষেবা একেবারে স্তব্ধ হয়ে যায়।

ধর্মঘটের অন্যতম ইস্যু, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল প্রত্যাহারের দাবিতে ঘঊঝঙ, ওচঋঞ ও ওঘচঞ ইত্যাদি সংগঠন গত ৮ তারিখ কুমুলুঙ অঞ্চলের মাধববাড়ি জাতীয় সড়ক অবরোধ করে। পুলিশ জোর করে অবরোধ প্রত্যাহার করাতে চাইলে আন্দোলনকারীদের সাথে তাদের বচসা হয়। এরপর পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে এবং নির্বিচারে লাঠিচার্জ করে। এতে বহু  লোক আহত হন। এরপর বিশাল পুলিশবাহিনী ও আধাসামরিক বাহিনী সেখানে পৌঁছলে উত্তেজনা বাড়তে থাকে এবং পরিস্থিতি আরো ঘোরালো হয়। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রশাসন সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়, আর সেই ব্যর্থতা ঢাকতে বিনা প্ররোচনায় তারা গুলি চালায়। সূত্রের খবর, গুলিবিদ্ধ ছয় জনই ওচঋঞ ও ওঘচঞ-এর সমর্থক।

গুলিবিদ্ধ ছয়জনকে ও আরো প্রায় আহত পনেরোজনকে সঙ্গে সঙ্গেই কুমুলুঙ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে আশঙ্কাজনক চারজনকে জিবি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সুদীপ রায়, পরে তিনি এবং স্থানীয় এমএলএ সুশান্ত চৌধুরী হাসপাতালে তাদের দেখতে যান। রাতেই বাম প্রতিনিধিদল হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান ও তাদের চিকিৎসার খোঁজ-খবর করেন। এই দলের নেতৃত্ব দেন বিরোধী দলনেতা ও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার। এদের মধ্যে দুজনের অবস্থা গভীর সঙ্কটজনক হলে পরবর্তী সময়ে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কলকাতায় পাঠানো হয়।

আদিবাসীঅধ্যুষিত এলাকার মানুষ প্রশাসনের ভূমিকায় ভীষণ ক্ষিপ্ত। আর তাতে গোটা ত্রিপুরা জুড়েই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। অনেক স্থানে পরিস্থিতি প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। এতে ৪৮ ঘণ্টাা নেটপরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে।  রাজ্যের সর্বত্র ভয়ের আবহাওয়া বিরাজ করছে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মত, এই পরিস্থিতি জাতি ও উপজাতিদের মধ্যে বিভাজনের পথ আরো প্রশস্ত করবে। বিরোধীরা মনে করেন, বিজেপির বিভাজনের রাজনীতিই এই অবস্থার জন্য অনেকাংশে দায়ী।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]