পরিবার পরিচালনা সম্পর্কে গৃহীদের প্রতি বুদ্ধের উপদেশ

আমাদের নতুন সময় : 23/01/2019

নোবেল বড়ুয়া প্রজ্ঞা

মহাকারুণিক বুদ্ধ নির্বাণ অভিমুখী ধর্মদানের পাশাপাশি গৃহীদের মঙ্গল, সুন্দর ও শান্তিময় গার্হস্থ্য জীবন যাপনে বিভিন্ন ধর্মোপদেশ প্রদান করেছেন। ত্রিপিটকের বিভিন্ন গ্রন্থে এসব ধর্মোপদেশ লিপিবদ্ধ রয়েছে। গৃহীদের উদ্দেশ্য করে প্রদত্ত বুদ্ধের এসব ধর্মোপদেশ গৃহী বিনয় হিসেবে গণ্য করা হয়। সিগালোবাদ সূত্র, কলহবিবাদ সূত্র, পরাভব সূত্র, মঙ্গল সূত্র, ব্যগ্ঘপজ্জ সূত্র, লক্খন সূত্র, গৃহীপ্রতিপদা সূত্র, ধম্মিক সূত্র, গৃহপতিবর্গ প্রভৃতিতে এসব উপদেশ সবচেয়ে বেশী পাওয়া যায়। বুদ্ধের এসব ধর্মোপদেশ বা অনুশাসন গৃহী বৌদ্ধদের জন্য অবশ্য পালনীয়।
আজকে আমাদের আলোচনা আয়-ব্যয় সম্পর্কে গৃহীদের প্রতি বুদ্ধের উপদেশ সম্পর্কে। গৃহীরা অনেক কষ্টে অর্থ উপার্জন করেন। কিন্তু সঠিক ধারণা ও পরিকল্পনা না থাকার দরুণ প্রয়োজনের সময় অর্থাভাবে ভোগেন। বুদ্ধ সিগালোবাদ সূত্রে আয়-ব্যয় সম্পর্কে এবং গৃহীদের উত্তম, নিষ্কুলশ জীবন যাপন সম্পর্কে বিভিন্ন উপদেশ দিয়েছেন। এ সিগালোবাদ সূত্রটি বুদ্ধ রাজগৃহের বেণুবন বিহারে অবস্থান কালে সিগালক নামে এক ব্রাহ্মণ পুত্রকে লক্ষ্য করে দেশনা করেন। সূত্রটি দীর্ঘ নিকায়ের ৩১তম সূত্র।
অর্জিত অর্থ কিভাবে সুষ্ঠুভাবে ব্যবহার করা যায় তার উপদেশ প্রদান করতে গিয়ে সিগালোবাদ সূত্রে বুদ্ধ আয় বা লাভের অংশকে চার ভাগ করে ব্যবহার করার দেশনা করেন। অর্থাৎ,
ক. সঞ্চিত অর্থ হতে চার ভাগের একভাগ দিয়ে জীবনযাত্রা নির্বাহ করবে। এ অংশ থেকে এক ভাগ দান করবে।
খ. দুই ভাগ কৃষি বা ব্যবসা-বাণিজ্যে নিযুক্ত করবে।
গ. চতুর্থ ভাগ সঞ্চয় করে রাখবে, যাতে বিপদের দিনে ব্যবহার করা যায়।
এছাড়াও বুদ্ধ বিভিন্ন নেশাপান, বেশ্যাসক্তি বা পরনারী লালসা, জুয়াখেলা, কু-সঙ্গীর সাহচর্য ও আলস্য পরায়ণতা ত্যাগ করার উপদেশ প্রদান করেন। বুদ্ধের একনিষ্ঠ উপাসক ধনকুবের শ্রেষ্ঠী অনাথপিন্ডিককে গৃহী সুখ বিষয়ক উপদেশ দিতে গিয়ে অঙ্গুত্তর নিকায়ে বুদ্ধ দেশনা করেন-
১. সৎপথে উপার্জন, ২. অর্থের যথাযথ ব্যবহার, ৩. ঋণ মুক্ত থাকা এবং ৪. সঠিক ও সদাচরণ ভিত্তিক জীবন পরিচালনা করতে। ত্রিপিটকের অঙ্গুত্তর নিকায়ের ব্যগ্ঘপজ্জ সূত্রে বুদ্ধ আয় বুঝে ব্যয় করার দেশনা করেছেন। তিনি বলেন, মিতব্যয়ী হতে হবে। আবার কৃপণতাও পরিহার করতে হবে। আয়-ব্যয় সমন্বয় করে যথারীতি জীবিকানির্বাহ করার উপদেশ প্রদান করেছেন।
বর্তমান সময়ে সরকার, বিভিন্ন ব্যাংক, বিভিন্ন এনজিও সংস্থা, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন অর্থের সদ্ব্যবহার ও সঞ্চয় সম্পর্কে বিভিন্নভাবে প্রচারণা চালাচ্ছে। গ্রামে-শহরে, পাড়া-মহল্লায় তারা উপস্থিত হয়ে জনমানুষকে নানানভাবে বুঝাচ্ছেন। কিন্তু সর্বজ্ঞ-সর্বদর্শী বুদ্ধ আজ হতে আড়াই হাজার বছরেরও আগে মানুষকে শুধুমাত্র সঞ্চয়ে উদ্বুদ্ধ করেননি, দেখিয়ে দিয়েছেন কীভাবে সঞ্চয় করতে হয়। বাতলে দিয়েছেন সঞ্চয়ের পথ। প্রণয়ণ করেছেন সুখী জীবন যাপন প্রণালী।
উপরোক্ত উপদেশ ছাড়াও গৃহীদের লৌকিক-পারমার্থিক সুখের কথা চিন্তা করে বুদ্ধ আরো বিভিন্ন উপদেশ প্রদান করেছেন। এসব উপদেশ পালন করলে গৃহী জীবন যেমন সুখের হয়, তেমনি নির্বাণের পথেও অগ্রসর হওয়া যায়। তাই এসব উপদেশ গৃহীদের মেনে চলা উচিত।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]