খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ চান জাফরুল্লাহ

আমাদের নতুন সময় : 10/02/2019

শিমুল মাহমুদ : খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ চান গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। গতকাল শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদ আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আপনি আর একটা সংলাপ ডাকেন। পরিষ্কার করে বলেন, খালেদা জিয়ার জামিনের ব্যাপারে কোন প্রতিবন্ধীকতা সৃষ্টি করবেন না। পরিষ্কার করে বলে দেন, এদিকে কোন নাক গলাবেন না। বিচার কে বিচারের মত চলতে দেন। তারপরে দেখি, খালেদা জিয়ার মুক্তি হয় কিনা। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের এ প্রতিষ্ঠাতা বলেন, আমি বিএনপির নেতৃবৃন্দের বারবার বলেছি আসছি। গতকালও প্রস্তাব করেছি, আপনাদের কে রাস্তায় থাকতে হবে। রাজপথে নামেন। ভ্যান-ট্রাক নিয়ে মিছিল করেন। শোডাউন দিন। রাস্তায় বসে মোনাজাত ধরেন। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটের ভেতরে বসে হাতি-ঘোড়া মারলে খালেদা জিয়ার মুক্তি আসবে না। তারেক রহমানের সমালোচনা করে তিনি বলেন, আপনি লন্ডনে বসে স্কাইপিতে কথা বলবেন ঠিক আছে। তবে সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে বসেন। তা না হলে ভুল ভ্রান্তি হবে। আপনি ভবিষ্যতের প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীদের ধৈর্য ধরতে হবে। রিজভীর মাধ্যমে মিটিং না করে সিনিয়র নেতাদের ডাকেন। আপনি আরেকজন রিজভী হয়ে যাবেন না। ঐক্যফ্রন্ট করে বিএনপি লাভবান হয়েছে বলেও মন্তব্য করে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ঐক্যফ্রন্ট বিএনপিকে নতুন জীবন দিয়েছে। ঐক্যফ্রন্ট না হলে তারা রাস্তায় বের হতো পারতো না। ড. কামাল হোসেন সব ধরনের চেষ্টা করেছেন। তবে শেখ হাসিনা কথার বরখেলাপ করেছেন। তিনি কোনো কথা রাখেননি। হাসিনাকে বিশ্বাস করেছিলাম আমরা। ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন গিয়ে ২০১৪ সালে খালেদা জিয়ার সিদ্ধান্ত যে সত্য ছিল তা প্রমাণিত হয়েছে। এটাতে বিএনপি লাভবান হয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারত সফর সর্ম্পকে তিনি বলেন, বাংলাদেশের ১৮০০ উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ট্রেনিং দিতে, যে দেশে পানির চেয়ে গরুর মূত্রের দাম বেশি। মানুষের চেয়ে পশুর দাম বেশি। পশুর জন্য মানুষ হত্যা করে। সে দেশে কী ট্রেনিং হতে পারে। আমরা বুঝতে পারছি। তাদের মগজ ধোলাই করে বাংলাদেশ নিয়ে আসা হবে। এতে হিতে বিপরীত হয়ে শেখ হাসিনাকেই এর খেসারত দিতে হবে। গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হলে ভারতের যে চক্রান্ত, তার বিরুদ্ধে আমাদেরকেই রুখে দাঁড়াতে হবে। আর এটা কোনো সহজ কাজ নয়। বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম বলেন, আপনি আমাদেরকে শেখালেন, কিভাবে কালোকে সাদা, সাদাকে কালো করতে হয়। আজকে মিথ্যা মামলায় বিচারপতি কে রায় দিতে বাধ্য করা হচ্ছে। আপনাকেও লাল ঘরে যেতে হবে তখন বুঝবেন বেগম জিয়ার কষ্ট কতটা, আপনিও এই কষ্ট সহ্য করতে পারবেন না। সম্পাদনা : ওমর ফারুক




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]