ডা. হাসান বলছেন, ধর্ষণ বিষয়ে নির্জলা মিথ্যা বলেছে মিয়ানমার

আমাদের নতুন সময় : 10/02/2019

তাসমিয়াহ আহমেদ : ‘২০১৭ সালের শেষ দিকে রোহিঙ্গাদের ওপর সেনা অভিযান চালানোর সময় নারী ও মেয়েদের ধর্ষণের ঘটনা পুরোপুরি অস্বীকার করেছে মিয়ানমার, যা স্পষ্ট মিথ্যা।’ এ প্রতিবেদককে এসব কথা বললেন ডা. এমএ হাসান।

১৯৭১ সালের যুদ্ধাপরাধ বিষয়ক গবেষক ও বাংলাদেশ যুদ্ধাপরাধ বিষয়ক তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক ডাঃ হাসান বলেন,  প্রত্যেক অপরাধী একটি অপরাধ করার পর, সেটা অস্বীকারই করে। এটা খুবই সাধারণ একটি প্রতিক্রিয়া। মিয়ানমার সরকারও এর ব্যতিক্রম নয়।

৪ ফেব্রুয়ারি জাতিসংঘের নারী অধিকার কমিটির কাছে মিয়ানমারের দীর্ঘ বিলম্বিত প্রতিবেদন দাখিল বিষয়ে, এসব কথা বলেন তিনি। মিয়ানমারের এই অস্বীকারকে বেদনাদায়ক সত্যের গোপন ও হাস্যকর অস্বীকার বলে এক বিবৃতি দিয়েছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এবং দ্যা গ্লোবাল রাইটস ওয়াচডগ।

২০১৭ সালের নভেম্বরে জাতিসংঘের নারীর বিরুদ্ধে বৈষম্য দূরীকরণ বিষয়ক কমিটি-সিইডো, মিয়ানমারকে ২০১৮ সালের মে মাসের মধ্যে দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যের নারী ও মেয়েদের অবস্থা সম্পর্কে প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছিলো। ঐ সময়সীমার প্রায় আট মাস পর, অভিযোগ অস্বীকার করে অবশেষে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে মিয়ানমার সরকার। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘কাউকে দোষী সাব্যস্ত করার পক্ষে তাদের কাছে যথেষ্ট প্রমাণ ও তথ্য নেই’।

 

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]