• প্রচ্ছদ » » ইচ্ছে করছে শীতকে সরিয়ে বসন্তকে উপভোগ করি!


ইচ্ছে করছে শীতকে সরিয়ে বসন্তকে উপভোগ করি!

আমাদের নতুন সময় : 11/02/2019

মেঘা সূচি

মাঝে-মধ্যেই ইচ্ছে হয় ভবঘুরে বা বাউন্ডুলে, বেদুঈন বা যাযাবর অথবা তৃতীয় লিঙ্গের একজন মানুষ হয়ে যেখানে সেখানে ঘুরে বেড়াই। চাকরির প্রথমেই বাবা একখানি বই (সবুজ রঙের কভার) এনে উপহার দিয়েছিলেন। জনাব ফিরোজ স্যারের লেখা – ‘আচরণ বিধি- ৭৯’। বইটি সম্পর্কে আপনাদের নিশ্চয়ই ধারণা আছে। যা-ই হোক এতে তো চাকরির পরের সরকারি চাকরিজীবীদের অনুশাসন নিয়ে লিখেছেন তিনি। কিন্তু চাকরি পাওয়ার পূর্ব থেকে জন্ম পর্যন্ত এর চেয়েও কঠিন অনুশাসনে বড় হয়েছি আমি। আসলে ব্যক্তির ব্যক্তিসত্ত¡া প্রকাশের সুযোগ না থাকলে সে বিদ্রোহী হয়ে উঠবে এটাই স্বাভাবিক নয় কী!
ইচ্ছের কোনো দাম নেই। এই ধরুন- ইচ্ছে করছে শীতটাকে সরিয়ে বসন্ত উপভোগ করি, পারছি না। সম্বৎসর খেপামি করার সুযোগ মানুষের হাতে থাকে না। তবে অপ্রমত্ততা বজায় রেখে চলাও কখনও কখনও মানুষের পক্ষে দুঃসাধ্য হয়ে ওঠে। এতো বড় পৃথিবীর যদি দু’মাস/কয়েক মাসের ব্যবধানে ঋতু পরিবর্তন করে তার ব্যালেন্স রাখতে হয় তাহলে আমাদের কেন রুটিন মাফিক ১২ মাস চলতে হবে!
মানুষের মহা মুশকিল এই যে নিজ প্রকৃতির বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট আইনানুসারে তাকে তিনশ-পঁয়ষট্টি দিন এক ভাবেই চলতে হয়। আসলে নিজের ভেতর যে একটা চির নতুন/চির রহস্য আছে সেটাকে সলজ্জে গোপন করে নিজেকে সর্বসাধারণের কাছে নিতান্ত চিরাভ্যস্ত রুটিন চালিত যন্ত্রের মতো দেখাতে হয়। এটাই! আর এজন্যই মানুষ বিগড়ে যায়, বিদ্রোহী হয়ে ওঠে। অনেক সময় আপনাকে (নিজেকে) উপলব্ধি করতে শিল্প – সাহিত্যের আশ্রয় গ্রহণ করে। ভদ্র সমাজে, সু-সভ্য সীমার মধ্যে মানুষের ইচ্ছেগুলো যখন দলিত, মথিত, লাঞ্চিত, বঞ্চিত হতে থাকে তখন সে কলমকে হাতিয়ার করে হৃদয়ের কালি দিয়ে লিপিবদ্ধ করে কতোগুলো ইচ্ছের ছাপ! ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]