• প্রচ্ছদ » » পূর্ণিমার সংগ্রামী চেতনাকে সম্মান জানাই


পূর্ণিমার সংগ্রামী চেতনাকে সম্মান জানাই

আমাদের নতুন সময় : 11/02/2019

দেবনাথ নারায়ণ

মহিলা সংরক্ষিত আসনে পূর্নিমা শীলের দলীয় সাংসদ মনোনয়নে ফর্ম কেনা ছিলো একটি আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। এই সিদ্ধান্তের পিছনে সংখ্যালঘু স¤প্রদায়ের একটি মহলের প্রত্যক্ষ মদত ছিলো। আমি আমার পূর্ববর্তী লেখায় বলেছিলাম পূর্নিমা শীলের সাংসদ হওয়া সুদূরপরাহত ব্যাপার। সাংসদ হওয়া তো দূরের কথা পূর্নিমাকে একটি চাকরির ব্যবস্থাও কেউ করে দিতে পারেনি। সেখানে তাকে সাংসদ বানানোর দুঃসাহস দেখানো উচিত হয়নি। পূর্নিমাকে আমরা তার অতীত ভুলে যেতে দিচ্ছি না। প্রতি পদক্ষেপে আমরা তার অতীত টেনে তাকে ক্ষতবিক্ষত করছি। চাকরির জন্য যেখানেই তাকে পাঠানো হয়েছে সেখান থেকে তাকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে ‘ধর্ষিতা’ বলে। এ সমাজ তাকে নিস্তার দেবে না। কারণ এ সমাজ এখনো একজন নিগৃহীতাকে সম্মান দিতে শিখেনি।
বামুন হয়ে চাঁদে হাত দিতে নেই। আমরা আমাদের অতীত ভুলে যাই। সংখ্যালঘু নির্যাতন, সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন, সংখ্যালঘু অস্তিত্ব নিয়ে সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত ছাড়া দ্বিতীয় কোনো সংখ্যালঘু সাংসদ সংসদে কথা বলেছে এমন রেকর্ড সংসদীয় ইতিহাসে নেই। সেখানে কোথাকার কোন পূর্নিমা সংসদে দাঁড়িয়ে দেশের বদনাম করবে এ হতে পারে না। যে সংসদ রাজাকারের রক্তের উত্তরসূরীদের অংশীদারিত্বে কলুষিত সে সংসদে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির একজন দাঁড়িয়ে তর্জনী উচিয়ে সোচ্চার হবে এ হতে পারে না। পুর্নিমা ভুলে গিয়েছিলো একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সাথে এ সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই। পূর্নিমা সারাদেশে রাজাকার আলবদর আর স্বাধীনতা বিরোধীদের বিরুদ্ধে ৬১টি সভায় বক্তব্য রেখেছিলো। এ পাপের প্রায়শ্চিত্ত তাকে করতেই হবে। পূর্নিমাদের আজন্ম পাপ তারা সংখ্যালঘু কুলে জন্ম নিয়েছিলো।
পূর্নিমাকে আমি বেগম রোকেয়ার সাথে তুলনা করে তার সংগ্রামী চেতনাকে কলিমালিপ্ত করতে চাই না। একাত্তরের মা বীরাঙ্গনা রমা চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে নিগৃহিতা হয়েছিলেন। জীবদ্দশায় তিনি পায়ে চটি পড়তেন না মাটিকে অসম্মান করা হবে বলে। কারণ এই মাটিতে শুয়ে আছেন তার দুই ছেলে এবং অসংখ্য শহীদের দেহ। মুক্তিযুদ্ধ তার কাধে ঝোলা ধরিয়ে দিয়েছিলো। এ জাতি, এ সরকার তাকে সম্মানিত করেনি। তাকে কোনো পদক দেয়া হয়নি, ন্যূনতম তাকে স্মরণে রাখার মতো কোনো নিদর্শন নেই। এ অকৃতজ্ঞ জাতির কাছে একজন নির্যাতিতা, ধর্ষিতা যথাযথ সম্মান পাবেন, এ আশা করা দুরাশা। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]