মোহাম্মদ জমির মনে করেন, ভারতের নির্বাচনের কারণে তিস্তা চুক্তির ব্যাপারে কিছু করা সম্ভব হবে না

আমাদের নতুন সময় : 11/02/2019

খায়রুল আলম : সাবেক রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জমির বলেছেন, বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষা করার প্রয়োজনেই তা বন্ধ করা হয়েছে। খামাখা লোকজন অনুপ্রবেশ করবে সে সুযোগ কোনোভাবে দেয়া সম্ভব নয়। আমরা আগেই প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা নিয়েছি, তাদের দেখাশোনা করছি। আর কোনো বাইরের লোক দেশে নেয়ার সুযোগ নেই।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে উখিয়া, টেকনাফ অঞ্চলে আমাদের দেশের লোক থেকে অধিক সংখ্যক বেশি হয়ে গেছে অনুপ্রবেশকারী। যদি নতুন করে যারা আসতে চায় তাদের নিতে হয়, তাহলে জাতিসংঘসহ যে সকল দেশ মনে করে তারা নিতে পারে। তারা নিজ দেশে নিয়ে তাদের রাখলেই পারে। আমাদের কোনো আপত্তি নেই। পরবর্তী সময়ে তারা যখন ফেরত পাঠাতে পারবে তখন ফেরত পাঠিয়ে দেবে। আমাদের নতুন করে আহ্বান করার কিছু নেই বলে আমি মনে করি। মানবাধিকার নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে একটি অনুষ্ঠান করেছে। সেখানে আমি বলেছি, আমাদের উচিত সবার এক সঙ্গে কাজ করা এবং মিয়ানমারের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নত রাখা। তবে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর জন্য আমাদের বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর সাথে একত্রিত হয়ে মিয়ানমারকে চাপ দিতে হবে।

অন্য একটি প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ জমির বলেন, তিস্তা চুক্তি নিয়ে মোদি ২০১৪ সালেই বলেছিলেন, তিনি থাকা অবস্থায় তিস্তা চুক্তি সম্পূর্ণ করবেন। কিন্তু পরে আর সেটি করা হয়নি। এখন তিনি আবার আশ্বাস দিয়েছেন, দেখা যাক কী হয়। তাদের মে মাসে নির্বাচন হওয়ার কথা। যার ফলে মনে হয় না এ চুক্তির ব্যাপারে কোনো কিছু করা সম্ভব হবে। তবে দ্বিপক্ষীয় ক্ষেত্রে যা কিছু করার আছে তা আমরা করে যাবো এবং আশা করবো তারা কিছু একটা করবে।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]