সময় সম্পর্কে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন

আমাদের নতুন সময় : 01/03/2019

মাহফুজ আল মাদানী

মানুষের জীবনে সময়কে যারা প্রকৃতভাবে কাজে লাগিয়েছেন, চাই সেটা ইহকালের কোন কাজে বা পরকালের নাজাতের জন্য কোন কাজে ব্যয় করে তাহলে তারা অনেক বিপদাপদ এবং অনেক মন্দ কাজ হতে বেচেঁ থাকতে পেরেছেন। ইসলাম মানুষকে সময়ের গুরুত্ব দেয়া এবং সময়ানুবর্তীতার শিক্ষা দেয়। এ জন্য প্রতিটি ইবাদাতের জন্য সময়কে নির্ধারণ করে রাখা হয়েছে। নামাজকে দিনে ও রাতে পাচঁবার আদায় করার হুকুম দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে তা আদায় করতে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই নির্ধারিত সময়ে নামাজ আদায় করা মু’মিনদের জন্য আবশ্যক।’ ( সুরা আন নিসা ঃ ১০৩)

তেমনিভাবে রোজা, হজ্জ ও যাকাতের সময় নির্ধারিত রয়েছে। পবিত্র রামাদ্বান মাস ছাড়া রোজা ফরজ হয় না। আবার হজ্জের মাস সমূহ ছাড়া হজ্জ আদায় করা সম্ভব নয়। নির্ধারিত সময় অতিক্রান্ত না হলে যাকাত ফরজ হয় না। যার মাধ্যমে এটা সুস্পষ্ট হয় যে, ইসলাম ধর্ম তার ইবাদাত-বন্দেগীর মাধ্যমে সময়ানুবর্তীতার শিক্ষা দেয়। হাদিসের ভাষায়- ‘হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেছেন, পাচঁটি বিষয়ে প্রশ্ন না করা পর্যন্ত কিয়ামত দিবসে আদম সন্তানের পদদ্বয় নড়বে না। (তন্মধ্যে দুটি হলো) তার বয়স সম্পর্কে কিভাবে তা ক্ষয় করেছে। তার যৌবন সম্পর্কে কিভাবে তা অতিবাহিত করেছে।’ (তিরমিজি, মিশকাতুল মাসাবীহ -৫১৯৭, বায়হাকী -১৬৪৮)

অন্য হাদীসে সময়কে মানুষ অবহেলা করে যেভাবে ইচ্ছা সেভাবে ব্যয় করছে এবং গুরুত্ব প্রদান না করে অবসর থাকছে তার প্রতি ইঙ্গিত বহন করে বলা হয়েছে, ‘হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেছেন, দুটি এমন নিয়ামত রয়েছে যেগুলো সম্পর্কে অনেক মানুষই উদাসীন। তা হলো, সুস্থতা ও অবসর সময়।’ (বোখারী -৬৪১২, তিরমিজি -২৩০৪, ইবনে মাজাহ -৪১৭০, মিশকাতুল মাসাবীহ -৫১৫৫) তাই আসুন সময়কে কাজে লাগিয়ে নিজের এবং সমাজের জন্য কিছু করি।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]