গণপরিবহনে যৌন হয়রানি, একশন এইডের গবেষণা ৮৬ ভাগ, ব্র্যাকের ৯৪

আমাদের নতুন সময় : 09/03/2019

দেবদুলাল মুন্না : দেশের ৮৬ ভাগ নারী যৌন হয়রানির শিকার হন গণপরিবহনে। শতকরা ৮৮ জন নারী রাস্তায় চলার পথে যৌন হয়রানিমূলক মন্তব্যের মুখোমুখি হন। এ তথ্য উঠে এসেছে অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ এবং ব্র্যাকের দুটি গবেষণায়। অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ইকুয়িটি ম্যানজোর কাশফিয়া ফিরোজ বলেন, আমরা গণপরিবহণে ধর্ষণসহ নানা ধরনের যৌন হয়রানির কথা জানি। এবার আমরা যৌন নির্যাতনে শব্দের ব্যবহারকে তুলে আনার চেষ্টা করেছি। এতে দেখা যায়, ঘরের বাইরে নারী যে যৌন হয়রানির শিকার হয়, তা প্রধানত চলাচলের পথে এবং পরিবহনে। এটি প্রতিকারহীনভাবে বাড়ছে দিনের পর দিন।

২০১৮ সালে ব্র্যাক গণপরিবহনে যৌন হয়রানি নিয়ে আরেকটি গবেষণা করে। এতে দেখা যায়, গণপরিবহনে যাতায়াতকালে ৯৪ ভাগ নারী যৌন হয়রানির শিকার হন। এই যৌন হয়রানির জন্য যারা দায়ী তাদের বড় অংশ ৪১ থেকে ৬০ বছর বয়সী পুরুষ, শতকরা হিসেবে তারা ৬৬ ভাগ। ঘটনার শিকার হলে মেয়েরা কী পদক্ষেপ নিয়ে থাকেন? এই প্রশ্নের উত্তরে গবেষণা জরিপে অংশ নেয়া ৮১ শতাংশ নারী বলেছেন, তারা চুপ করে থাকেন। আর ৭৯ শতাংশ বলেছেন, তারা আক্রান্ত  হওয়ার স্থান থেকে সরে যান।

ব্র্যাক-এর জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটি প্রোগ্রামের সমন্বয়কারী হাসনে আরা বেগম বলেন, প্রচলিত যৌন হয়রানির পদ্ধতিগুলোর বাইরে এখন মোবাইল ফোনে ছবি তুলে নিয়ে হয়রানি করার মাত্রা বেড়ে যাচ্ছে। আর পরিস্থিতির কারণেই অধিকাংশ নারী অভিযোগ করেন না। আমাদের দেশে গণপরিবহন নীতিমালা নেই। যৌন হয়রানির আইন সুনির্দিষ্ট নয়। এব্যাপারে শুধুমাত্র উচ্চ আদালতের একটি নির্দেশনা আছে। প্রয়োজন গণপরিবহন নীতিমালা এবং সুনির্দিষ্ট আইন। এর সঙ্গে প্রয়োজন সচেতনতা।

অন্যদিকে একশন এইডের কাশফিয়া ফিরোজ বলেন, চালক ও হেলপাররা যাতে জেন্ডার বিষয়ে সচেতন হোন সেজন্য তাদের কাউন্সিলিং দরকার। এই দায়িত্ব নিতে হবে পরিবহন মালিকদের। পরিবহনগুলোকে করতে হবে নারী বান্ধব।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের কর্মকর্তা শাহীন আখতার বলেন, গণপরিবহনে নারী আক্রান্তের ঘটনা বহু আগে থেকেই চলে আসছে। আমাদের গণপরিবহন এখনও নারীবান্ধব হয়ে উঠতে পারেনি। একটা উদাহরণ দিলেই সেটি পরিস্কার হবে, এখনও ৪৫/৫০ সিটের বাসে নারীর জন্য সিট বরাদ্দ থাকে মাত্র ৪/৫টি। ফলে অনেক নারীকেই দাঁড়িয়ে যেতে হয়। সেক্ষেত্রে আক্রান্তকারীরা সুযোগটি নেয়। নারীযাত্রীর সিটের বরাদ্দ বাড়াতে হবে। সম্পাদনা : রেজাউল আহসান

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]