• প্রচ্ছদ » » বই যদি পাঠকের হাতের নাগালে পৌঁছে দেয়া যায়, পাঠক বই কেনে, বই পড়ে


বই যদি পাঠকের হাতের নাগালে পৌঁছে দেয়া যায়, পাঠক বই কেনে, বই পড়ে

আমাদের নতুন সময় : 15/03/2019

স্বকৃত নোমান

মানুষ বই পড়ে না, বই কেনে না, ইন্টারনেটের একালে বইয়ের পাঠক কমে গেছেÑএসব কথা হামেশাই শোনা যায়। কথাগুলো আংশিক সত্য, পুরোপুরি নয়। এবারের বইমেলায় তো প্রায় সাড়ে ৪ হাজার বই প্রকাশিত হলো। প্রতিটি বইয়ের মুদ্রণসংখ্যা কম করে হলেও তিনশো। মেলা তো শেষ হলো। এতো বই কোথায় গেলো? প্রকাশকরা কী এসব বই বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গায় ফেলে দিলো? না, তা দেয়নি। তথ্য মতে, এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রায় আশি কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছে। কমবেশি হতে পারে। একুশে গ্রন্থমেলার কথা থাক। টানা একমাসের এতো বিশাল মেলা, আশি কোটি টাকা বিক্রি খুব বেশি নয়। বরং বলি ঢাকার বাইরের কয়েকটি বইমেলার কথা।
বইকে যদি পাঠকের হাতের নাগালে পৌঁছে দেয়া যায়, পাঠক বই কেনে, বই পড়ে। জামালপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ফেব্রæয়ারিতে অনুষ্ঠিত হয় চারদিনের বইমেলা। জামালপুরের এডিসি ও প্রাবন্ধিক রাজিব সরকারের সঙ্গে কথা হলো। জানালেন, এ বইমেলায় ছয় লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছে। বাগেরহাটের চিতলমারি উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মার্চে অনুষ্ঠিত হয় দশ দিনের বইমেলা। শেষ হয়েছে আজ। কথা হলো কথাসাহিত্যিক ও চিতলমারির ইউএনও সাঈদ আজাদের সঙ্গে। জানালেন, চিতলামরি বইমেলায় প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছে। অপরদিকে পত্রিকায় দেখলাম, খুলনার মাসব্যাপী বইমেলায় বিক্রি হয়েছে প্রায় দেড় কাটি টাকার বই। চট্টগ্রামে এবার কুড়ি দিনের সমন্বিত বইমেলায় চৌদ্দ কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছে। সাতক্ষীরা, ফেনীসহ আরো একাধিক জেলা-উপজেলায় বইমেলা হয়েছে। সেসব মেলায় কতো টাকার বই বিক্রি হয়েছে জানি না। নিশ্চয়ই গড়ে তিন লাখের কম নয়।
জামালপুরের রাজিব সরকার জানালেন, বইমেলার শুরুতে তিনি জেলার স্কুলগুলোতে চিঠি পাঠিয়েছেন, যাতে শিক্ষকরা ছাত্র-ছাত্রীদের বইমেলায় নিয়ে আসে। স্কুল কর্তৃপক্ষ ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে। ফেব্রæয়ারি ও মার্চ মাসে স্কুলগুলোর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এসব প্রতিযোগিতায় পুরস্কার হিসেবে সাধারণত দেয়া হয় ক্রেস্ট বা ক্রোকারিজ সামগ্রী। এবার জামালপুরের অনেক স্কুল ক্রেস্ট-ক্রোকারিজের পরিবর্তে পুরস্কার হিসেবে দিয়েছে বই।
জামালপুর, চিতলমারি, খুলনা, সাতক্ষীরা, চট্টগ্রাম, ফেনীÑএগুলো উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। এভাবে প্রত্যেক জেলা উপজেলায় বইমেলার আয়োজন করা যেতে পারে। আয়োজন করতে হবে জেলা-উপজেলা প্রশাসনকেই। স্থানীয় রাজনীতিবিদরা এটা করবে না। কারণ বইমেলায় দু-পয়সা কামাইয়ের সুযোগ নেই। এসব মেলা হতে পারে ফেব্রæয়ারিতে বা মার্চে বা বাংলা নববর্ষে। জামালপুরের স্কুলগুলোর মতো দেশের অন্যান্য স্কুল কর্তৃপক্ষও যদি ক্রেস্ট বা ক্রোকারিজের বদলে ছাত্রছাত্রীদের বই উপহার দেয়, তাহলে ভাবুন, সারা দেশে কতো টাকার বই বিক্রি হবে? পুরস্কার হিসেবে ছাত্রছাত্রীদের থালা-বাসন-ঘটি-বাটি আর কতো দেবেন? এবার একটু বইয়ের দিকে নজর দিন। পুরস্কার হিসেবে তাদের হাতে বই তুলে দিন।
জেলা-উপজেলায় বা গ্রামে গ্রামে পাঠাগার গড়ে তোলার কথা বলা হয়। কেউ গড়ে তোলে না। এই কাজ রাজনীতিবিদদের হলেও তারা এটা করবে না। ভোটের রাজনীতিতে পাঠাগারের বদলে মসজিদ-মন্দির গড়ায় বেশি লাভ। যেটায় বেশি লাভ তারা সেটাই করবে। সুতরাং উদ্যোগ নিতে হবে সরকারকেই। দেশ তো উন্নত হচ্ছে। রাস্তাঘাট উন্নত হচ্ছে। হোক। রাস্তাঘাটের সঙ্গে যোগাযোগের সম্পর্ক। যোগাযোগের সঙ্গে অথনীতির সম্পর্ক। কিন্তু শুধু রাস্তাঘাট উন্নয়নের প্রতি জোর দিলে তো হবে না, মানুষের আত্মিক উন্নয়নের প্রতিও জোর দিতে হবে। তবেই উন্নয়ন হবে টেকসই।
আগামীদিনে দেশের প্রতি জেলা-উপজেলায় স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে বইমেলার আয়োজন করা যায় কিনা, এ ব্যাপারে সরকারের সংশ্লিষ্ট মহল ভেবে দেখতে পারে। বেশি কিছু দরকার নেই, কেন্দ্র থেকে স্থানীয় প্রশাসনকে একটা চিঠি দিলেই হবে, স্থানীয় প্রশাসনই সুচারুভাবে মেলার আয়োজন করতে পারবে। যেমন করা হয়েছে জামালপুরে, চিতলমারিতে, ফেনীতে, সাতক্ষীরায়, খুলনা ও চট্টগ্রামে। অগ্রিম টাকা দিয়ে বই কিনতে হবে না। প্রকাশকরাও নিশ্চিয়ই এই ব্যাপারে সহযোগিতা করবে। প্রত্যেক উপজেলা প্রশাসন যদি প্রকাশকদের সহযোগিতা চায়, প্রকাশকরা টাকা খরচ করে ঢাকা থেকে বই পাঠানোর ব্যবস্থা করবেন। প্রয়োজেন নিজেরা মেলায় হাজির থাকবেন। আমাদের প্রকাশকরা এই ব্যাপারে ইতিবাচক, আন্তরিক। দরকার সরকারি উদ্যোগ। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]