• প্রচ্ছদ » » বিমানবন্দরে মনিটরিংয়ের ক্ষেত্রে কিছুটা ঘাটতি আছে বললেন শাহজালাল বিমানবন্দরের সাবেক এমডি জাকির হোসেন


বিমানবন্দরে মনিটরিংয়ের ক্ষেত্রে কিছুটা ঘাটতি আছে বললেন শাহজালাল বিমানবন্দরের সাবেক এমডি জাকির হোসেন

আমাদের নতুন সময় : 15/03/2019

জুয়েল খান : বিমানবন্দরের নিরাপত্তার বিষয়টি মূলত নির্ভর করে তিনটা জিনিসের ওপর- প্রশিক্ষিত জনবল, প্রযুক্তিগত সহায়তা এবং মনিটরিং। তবে মনিটরিংয়ের ক্ষেত্রে কিছুটা ঘাটতি লক্ষ্য করা যায়। সবসময় এবং সব জায়গাতে মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা থাকতে হবে। নিরাপত্তা কর্মীরা কী করছে সেই বিষয়টা সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে সবসময় নজরদারি করা সম্ভব। এছাড়া কর্মীদের বিশ্রামের বিষয়টাও নজর দিতে হবে, যাতে শুধু ডিউটির জন্য বসে আছে, কিন্তু তার মনোযোগ রয়েছে অন্যদিকে, সেই বিষয়টাও নজরে রাখা উচিত বলে মনে করেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সাবেক পরিচালক গ্রæপ ক্যাপ্টেন এম কে জাকির হোসেন। তিনি বলেন, বিমানের কর্মকর্তাদের খুবই উন্নতমানের প্রশিক্ষণ দেয়া। হয় আবার এখন যেসব মেশিনপত্র আছে সেগুলো খুবই ভালো মানের। এখন বিমানে ভ্রমণের সময় অস্ত্র নেয়ার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের নিষেধাজ্ঞা নেই। কেউ যদি প্রয়োজন মনে করেন তাহলে তার বৈধ অস্ত্র নিতে পারবেন, তবে কিছু নিয়ম মানতে হবে। বিমানবন্দরে ঢোকার সময় তাকে ডিক্লেয়ার করতে হবে যে, আমার কাছে অস্ত্র আছে এবং তখন কর্তৃপক্ষের কাছে অস্ত্র জমা দিয়ে আর্মস ডিক্লেয়ারেশন ফরম পূরণ করতে হবে। তারপর এয়ারলাইন্স তাদের নিজস্ব প্রক্রিয়ায় অস্ত্রটি বহন করবে এবং অস্ত্র থেকে গুলি আলাদা করে এয়ারক্রাফটের হোল কম্পার্টমেন্টের যেখানে লাগেজ থাকে সেখানে রাখা হয়। বিমান যখন গন্তব্যে পৌঁছায় তখন ওই টোকেন জমা দিয়ে অস্ত্রটি ফেরত পাবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]