• প্রচ্ছদ » » বেশ্যা শব্দটা কোনোভাবেই অপমানসূচক নয়, বরং গর্বের


বেশ্যা শব্দটা কোনোভাবেই অপমানসূচক নয়, বরং গর্বের

আমাদের নতুন সময় : 15/03/2019

প্রীতি ওয়ারেসা

মাত্র কয়েকদিন আগেই বন্ধু-বোন সঙ্গীতা ম্যাসেঞ্জারে জিজ্ঞেস করেছিলো আপু, বেশ্যা মানে কী? আমার মেয়ে তাথৈ আজ আমাকে জিজ্ঞেস করেছে। সঙ্গীতার ছোট মেয়ে একটা প্রতিযোগিতায় লালনের ‘জাত গেল জাত গেল’ গানটি গেয়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে। গাইতে গিয়ে বেশ্যা শব্দটা তার মনে গেঁথে যায়। বাড়ি ফেরার পথে সে মাকে জিজ্ঞেস করে এর অর্থ কী! হঠাৎ এমন একটি প্রশ্ন শুনে সঙ্গীতা মেয়ের কাছে কাঁচুমাচু করেছে। উত্তর দিতে পারেনি। অবশেষে আমাকে জিজ্ঞেস করেছেÑবলতো ওকে এখন আমি কী উত্তর দেই? ছোট একটা মানুষকে বোঝানোর জন্য সহজ করে আমি উত্তরটা দিয়েছিলাম এভাবেÑবেশ্যা হলো সেই নারী যে অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয় না। সমাজের পুরুষরা চায় নারী তাদের কথামতো চলুক। যে নারী পুরুষের এই অন্যায় আবদার মানে না তাকে পুরুষরা বেশ্যা বলে অপমান করার চেষ্টা করে। আসলে বেশ্যা শব্দটা কোনোভাবেই অপমানসূচক নয়, বরং গর্বের। তাথৈকে তুই এটাই জানিয়ে দিস।
অরণি, বেশ্যা শব্দের মতো পতিতারও একই রাজনৈতিক অর্থ। মাথাওয়ালা ও গলায় জোরওয়ালা এদেশের সমস্ত নারীই পতিতা। সো কিপ ইওর চিন আপ ডারলিং। নির্বাচিত মন্তব্য : Ñতাসকিনা ইয়াসমিন অমি : এটা শুনে তাথৈ বলবে মা, আমি বড় হয়ে বেশ্যা হবো।- Ñপ্রীতি ওয়ারেসা : বলুক। জোর দিয়েই বলুক। একদিন আসবে যখন বেশ্যা শব্দ পুরুষদের নয় নারীদের মুখে শোনা যাবে। Ñজালাল খান : বলেছেন বেশ! তবে ¯্রফে বেশ্যাও তো সমাজে আছে, নাকি? Ñমুনশি মনিরুল ইসলাম : সভ্যতার খারাপ আবিষ্কার ওই শব্দগুলো।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]