আরেক আসামী মাদ্রাসা ছাত্রলীগ সভাপতি শামীম গ্রেপ্তার

আমাদের নতুন সময় : 14/04/2019

এমরান পাটোয়ারী : নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার এজহারভুক্ত আরেক আসামি সোনাগাজী ইসলামীয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন শামীমকে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শামিম জানায়-নুসরাতকে এর আগে সে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে ক্ষুব্ধ ছিলো। তাই এঘটনাকে পুজি করে কিলিং মিশনে অংশ নেয় শামিমসহ ১০জন। ১২ এপ্রিল শুক্রবার রাত ১২টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে পিবিআই ফেনীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. মনিরুজ্জামান জানিয়েছে। তিনি আরও জানান, গ্রেপ্তারের পর তাকে ফেনীতে আনা হচ্ছে।
এই হত্যাকান্ডে জড়িতদের মধ্যে শামিম অন্যতম একজন। ঘটনার পর থেকে পলাতক ছিল এই ছাত্রলীগ নেতা।
নুসরাতের ভাই নোমানের দায়ের করা মামলার এজহারভুক্ত আসামিরা হলেন- অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদদৌলা, পৌর কাউন্সিলর মকসুদুল আলম, প্রভাষক আবছার উদ্দিন, মাদরাসা শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন শামীম, সাবেক ছাত্র নুর উদ্দিন, জাবেদ হোসেন, জোবায়ের আহম্মদ ও হাফেজ আবদুল কাদের। আসামীদের মধ্যে একজন ছাড়া অন্যদের ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং কয়েকজনের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।
এ হত্যাকান্ডের প্রধান আসামি অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা সাত দিনের রিমান্ডে আছেন। ওই মাদ্রাসার ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আবছার উদ্দিন এবং নুসরাতের সহপাঠী আরিফুল ইসলাম, নুর হোসেন, কেফায়াত উল্যাহ জনি, নুসরাতের সহপাঠী ও মামলার প্রধান আসামি সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার ভাগনী উম্মে সুলতানা পপি ও আরেক শিক্ষার্থী জোবায়ের আহমেদ পাঁচদিন করে রিমান্ডে আছে। নুর উদ্দিনকে শুক্রবার সকালে ময়মনসিংহ থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এজাহারভুক্ত আসামিদের মধ্যে এখনো পলাতক রয়েছেন হাফেজ আবদুল কাদের। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]