সব অনুপ্রবেশকারীকে তাড়িয়ে দেওয়ার ঘোষণায় তীব্র সমালোচনার মুখে বিজেপি

আমাদের নতুন সময় : 14/04/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : ভারতের ক্ষমতাসীর দলকে সাম্প্রদায়িক উস্কানি দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত করছেন সমালোচকরা। ক্ষমতাসীন দল বিজেপি ইশতেহারে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, আবারও ক্ষমতায় এলে সকল ‘অনুপ্রবেশকারীকে’ ভারত থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অনুপ্রবেশকারী বলতে মূলত মুসলিম ও অন্য সংখ্যালঘুদের বোঝানো হচ্ছে। সিএনএন
বিজেপি প্রেসিডেন্ট অমিত শাহ্ বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গে নিজ দলের সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘আমরা দেশ থেকে প্রত্যেক অনুপ্রবেশকারীকেই বের করে দেবো। তবে শিখ, হিন্দু ও বৌদ্ধ্যদের ছাড় দেওয়া হবে।’ অমিত শাহ পুরো দেশজুড়েই ন্যাশনাল রেজিস্টারি অব সিটিজেনস (এনআরসি) চালু করার ঘোষণা দিয়েছেন। এনআরসি এমন একটি নীতিমালা যা নিয়ে আসাম সরকারকে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে। এই তালিকায় ৪০ লাখ আসামের নাগরিকের নাম বাদ পড়েছে। সরকার তাদের ‘বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারী’ বলে দাবি করছে। এই নাগরিকদের প্রায় সকলেই মুসলিম। বাংলাদেশ সরকার ঐতিহাসিক নথির উপর ভিত্তি করে বলেছে এরা কোনভাবেই বাংলাদেশি নয়। ইতিহাসও বাংলাদেশের এই দাবিকে সত্য বলে স্বীকৃতি দেয়। আসামের সঙ্গে বাংলাদেশের দীর্ঘ সীমান্ত রয়েছে। রাজ্যটির সঙ্গে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক যোগাযোগও প্রবল।
অমিত শাহ্ এর সাম্প্রদায়িক মন্তব্য এই বিতর্ককে আরো উস্কে দিয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘আমরা হিন্দু, শিখ, জৈন, পার্সি, খ্রিস্টান; যারা বাংলাদেশ বা পাকিস্তান থেকে আসছে তাদের আমরা বের করবো না। কারণ তারা আমাদের ভাই। নিজ দেশে নির্যাতিত হয়ে তারা আমাদের দেশে আসছে।’ এর ফলে প্রশ্ন উঠছে বিশে^র সবচেয়ে বেশি মুসলিমের দেশ ভারতের মুসলমানরা কি সরকারের ‘ভাই’ নয়! অমিত শাহ আরো বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের শরণার্থীদের (হিন্দু) আমি বলবো, আপনাদের কাউকে ভয় পাওয়ার দরকার নেই। আমরা শরণার্থীদের ভারতের পুত্র-কন্যা বলে বিবেচনা করবো এবং নাগরিকত্ব দেবো। বিজেপির প্রতিশ্রুত হলো, অনুপ্রবেশকারীদের থেকে মুক্তি পাওয়া।’
হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল বিজেপির দীর্ঘ মুসলিম নিপীড়নের ইতিহাস রয়েছে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যখন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, তখন গুজরাটে ভয়াবহ দাঙ্গায় প্রায় ২০০০ মুসলিম নিহত ও নারীরা ধর্ষণের শিকার হন। এই ঘটনায় মোদী সরাসরি জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে তিনি মুসলিম বিরোধী অবস্থানকে আরো সুসংহত করেছেন। দেশটিতে শুধু গরুর মাংস খাওয়ায় বহু মুসলিমকে খুন হতে হয়েছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]