আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলে মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্ব

আমাদের নতুন সময় : 11/05/2019

সমীরণ রায় : আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটে দেখা দিয়েছে মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্ব। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পর সংসদে ১৪ দলীয় জোট শরিকদের অবস্থান নিয়ে মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্বের সূত্রপাত। একই সঙ্গে সরকারের মন্ত্রিসভায়ও রাখা হয়নি ১৪ দলের শরিকদের। এরই প্রেক্ষিতে এই দ্বন্দ্ব আরও তীব্র আকার ধারণ করেছে। ইতোমধ্যে ১৪ দলীয় শরিকদলগুলো বিভিন্ন আলোচনা সভা ও সেমিনারেও আওয়ামী লীগের একক নেতৃত্বের বিষয়টি তুলে ধরেছে। এতে করে ১৪ দলীয় জোট সরকার শুধু আওয়ামী লীগের সরকারে পরিণত হয়েছে বলেও শরিক দলের নেতারা দাবি করে আসছেন।

জানা গেছে, একাদশ নির্বাচনে সংসদে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি শক্ত অবস্থানে না থাকায় ১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দল হিসেবে রাখতে চায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এতেই শরিকদের মধ্যে এক ধরণের মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। সম্প্রতি জাসদ একাংশের এক যৌথ সভায় এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। ওই আলোচনায় উঠে এসেছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ১৪ দলীয় জোট সরকার শুধু আওয়ামী লীগের সরকারে পরিণত হয়েছে। একাদশ সংসদ নির্বাচন পরবর্তীতে দেশে বিচলিত হওয়ার মতো এক রাজনৈতিক শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে।

জাসদ একাংশের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া নেতৃত্বাধীন দলটি বলছে, দেশে গণতন্ত্র ও সাংবিধানিক ব্যবস্থার জন্য এ ধরনের রাজনৈতিক শূন্যতা বিপদ সংকেত। এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে সব গণতান্ত্রিক ও প্রগতিশীল শক্তিকে বিষণœতা ঝেড়ে ফেলে রাজনৈতিক শূন্যতা পূরণে সক্রিয় হতে হবে আওয়ামী লীগের জোট শরিক দলগুলোকে। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পরবর্তী বিষণœ পরিস্থিতিতে দেশে বিচলিত হওয়ার মতো এক রাজনৈতিক শূন্যতা দৃশ্যমান হয়েছে। ১৪ দলীয় সরকার সংসদ নির্বাচনের পরে আওয়ামী লীগের সরকারে পরিণত হয়েছে। শুধু তাই নয়, রাজনৈতিক সরকারের সিদ্ধান্ত রাজনৈতিক পদ্ধতিতে হওয়ার প্রবণতা ক্রমেই প্রশাসনের একটি ক্ষুদ্র গোষ্ঠীতে সীমিত হয়েছে। আওয়ামী লীগ বহির্ভূত সংসদ সদস্যদের জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনার জন্য দেওয়া নোটিশ উপেক্ষা করে জাতীয় সংসদে সমালোচনামূলক আলোচনার সুযোগও সীমিত করে ফেলা হচ্ছে। এতে সাম্প্রদায়িকতা, সন্ত্রাস ও অদৃশ্য শক্তি নির্ভর বিএনপি-জামায়াত জোট জনগণের আস্থা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে। ফলে সৃষ্টি হয়েছে এক আশঙ্কাজনক রাজনৈতিক শূন্যতা। গণতন্ত্র ও সাংবিধানিক ব্যবস্থার জন্য এ ধরনের রাজনৈতিক শূন্যতা বিপদ সংকেত।

এ সম্পর্কে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ১৪ দলীয় জোটে এখন পর্যন্ত কোনো দ্বন্দ্ব নেই। আর দেশে কোনো রাজনৈতিক শূণ্যতাও নেই। এক প্রশ্নের উত্তরে রাশেধ খান মেনন বলেন, জাসদ একাংশের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়ার দল যে অভিমত ব্যক্ত করেছে তা তাদের পার্টির সিদ্ধান্ত। আমাদের পার্টিতে এমন কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]