সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে কড়া  নজরদারিতে রেখেছে পাকিস্তান

আমাদের নতুন সময় : 11/05/2019

আব্দুর রাজ্জাক : দেশটির সংবাদ মাধ্যমের সদস্যরা অভিযোগ করেন, পাকিস্তানের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আগের চেয়ে বেশি নজরদারির মধ্যে রয়েছে। সেখানে ক্রমান্বয়ে ভিন্নমত পোষণের পথ রুদ্ধ হয়ে যাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যারা ভিন্নমতাবলম্বী পোষ্ট করেন তাদের বিভিন্নভাবে ভয় দেখানো, আটক করাসহ অ্যাকাউন্টগুলো ব্লক করে দেয়া হচ্ছে। রয়টার্স।

সরকারের সমালোচনার অভিযোগে রোষানলে পড়ছেন সাংবাদিক, অধিকার কর্মী ও ভিন্নমতাবলম্বীরা। অনলাইন পোস্টের জন্য দেশের অভ্যন্তরে ও বাইরে তাদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করাসহ ভয় দেখানো হচ্ছে। সেন্সরশিপের মাধ্যমে খুব সচেতনভাবে ও সামষ্টিকভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ওপর আঘাত হানা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন কলামিস্ট গুল বুখারি। সরকারে সমালোচক হিসেবে বেশ পরিচিত এই লেখককে সরকার বিরোধী তথ্য প্রচারের অভিযোগে গত বছর গুম করা হয়েছিলো।

পাকিস্তান সরকারের রোষানলে পড়াদের অন্যতম সাংবাদিক রিজওয়ান-উর-রহমান রাজি। গত ফেব্রুয়ারিতে সরকার বিরোধী তথ্য প্রচারের পর তাকে বাসা থেকে তুলে নেয়া হয়।

টুইটার ও ফেসবুকে বেশ কিছু সেন্সরশিপ আনা হয়েছে যা অন্যকোনো দেশে প্রযোজ্য নয়। ফেসবুক জানায়, পাকিস্তানের অনুরোধে গত ৬ মাসে ৭ ধাপে প্রায় ২,২০৩ বিষয়ের ওপর কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে যা অন্যান্য দেশে উন্মুক্ত।

সাইবার সেন্সরশিপ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ অ্যানি জামান বলেন, পাকিস্তানে এটি করা সম্ভব হচ্ছে ২০১৬ সালের সাইবার আইনের কারণে। এ আইনে বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্রের নিরাপত্তা বিগ্নিত করে ও ইসলামের মর্যাদাহানী করে এমন কোনো বিষয় প্রচার করা যাবে না। এমনকি সৌজন্যতা ও নৈতিকতা বিরোধী কোনো বিষয়ও প্রচার নিষিদ্ধ। এই আইন লংঘন করলে ১৪ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে।’

 

 

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]