১১ মে বিংশ শতাব্দির বিশ্বখ্যাত চিত্রশিল্পী, ভাস্কর ওগ্রাফিক্স ডিজাইনার সালভাদোর দালির শুভ জন্মদিন

আমাদের নতুন সময় : 11/05/2019

বাবলু ভট্টাচার্য : বিংশ শতাব্দিতে পাশ্চাত্য চিত্রকলা শুধু ছবি আঁকায় সীমাবন্ধ থাকেনি। তা জন্ম দিয়েছে নানা শিল্প আন্দোলনেরও। এসব আন্দোলন ছবির সঙ্গে সঙ্গে কবিতা, নাটক, সিনেমা ইত্যাদি নানা শিল্প মাধ্যমকে প্রভাবিত করে। বিংশ শতাব্দীতে এমন সব প্রভাব বিস্তারকারী শিল্প আন্দোলনের যারা উদ্গাতা তাদের একজন সালভাদোর দালি (ঝধষাধফড়ৎ উড়সরহমড় ঋবষরঢ়ব ঔধপরহঃড় উধষল্পর উড়সèহবপয)। সুররিয়ালিস্ট শিল্পচূড়া মনি সালভাদোর দালিকে কাতালানের স্বপ্নভূমি আজন্ম আমৃত্যু আবিষ্ট করে রেখেছিলো। সান ফারনান্দো ইনস্টিউট, মাদ্রিদ এ চারুকলা পড়ার জন্য ভর্তি হন, ১৯২২ সালে। অবশ্য চিত্রকলায় হাতে-খড়ি হয় আরো আগে। এখানে এসে ভাস্কর্য আর চিত্রকলায় দক্ষতা বাড়তে থাকে।

মাদ্রিদে তার সাথে বন্ধুত্ব হয় গার্সিয়া লোরকা, বুনোয়েল প্রমুখের সাথে। ১৯২৬ সালের প্রথমবারের মতো প্যরিসের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন, সেখানে পরিচয় আরেক বিখ্যাতশিল্পী পাবলো পিকাসোর সাথে। এছাড়াও ব্রেঁতো, এলুয়ার, মাগ্রিত প্রমুখের সাথে তার যোগাযোগ  তৈরি হয়। ১৯২৯ সালে তার এগারটি পেইন্টিং নিয়ে প্যারিসে প্রথম বারের মতো চিত্র-প্রদর্শনী করেন। আস্তে আস্তে তার পরিচিতি বাড়তে থাকে।

দালি একাধারে চিত্রশিল্পী, ভাস্কর, গ্রাফিক্স ডিজাইনার। কিউবিজম, ফিউচারিজম ও মেটাফিজিক্যাল পেইন্টিংয়ের অনবিচ্ছিন্নতায় দালি সৃষ্টি করেন এমন এক স্যুরিয়ালিষ্টিক আবহ, শিল্পকলার ইতিহাসে যা বিস্ময়কর। দালি তার শিল্পকলায় এমন এক জগৎ সৃষ্টি করেছিলেন যার প্রভাবে বিংশ শতাব্দীর চিত্রকলায় খুলে গেছে এক নতুন দিগন্ত। দালি সাইত্রিশ বছর বয়সেই তার জীবদ্দশায় নিজের জীবনবৃত্তান্ত লিখে যান। বইটার নাম ঞযব ঝবপৎবঃ খরভব ড়ভ ঝধষাধফড়ৎ উধষল্প ।

নিজেকে জাহির করার একটা অদ্ভূত প্রবণতা ছিল দালির। তার ঐতিহাসিক গোঁফ-এর কথা নাই বা বললাম। ওস্লো নামে তার সার্বক্ষণিক সঙ্গী ছিলো একটি বিড়াল। তার জীবনযাপন প্রণালী অনেকের কাছে বেশ অদ্ভূত ও হাস্যরসাত্মক ছিলো। আর মাঝে এমন সব কথা-বার্তা বলতেন, যাতে সহজে লোকজনের মনোযোগ পেয়ে যেতেন। প্রচলিত আছে, রাস্তার কোনো লোককে যদি একজন আধুনিক শিল্পীর নাম বলতে বলা হয়, সে নামটি হবে সালভাদর দালির। এতো জনপ্রিয় ও সাধারণ্যে পরিচিত হতে পেরেছিলেন তিনি।

সুরারিয়ালিস্টরা এই স্বাধীনচারী সৃজন খেয়ালের মন্ত্রণা পেয়েছিলেন অস্বভাবী মনোবিজ্ঞানীদের আদি পিতা ফ্রয়েডের কাছ থেকে। তার ‘স্বপ্নের বয়ান’ গ্রন্থ প্রকাশ পাওয়ার পর মানুষ সত্যকে নতুন করে পেল। যারা ‘স্বপ্নবয়ান’ পড়েননি তারাও জানেন যে মানুষের চলাচল অন্তর্গত নির্দেশে সক্রিয়। স্বপ্নই শুধু সত্য। বিচিত্র স্বপ্নজালে মানুষ বন্দি। স্বপ্নের মধ্যেই আসল মানুষ বিরাজ করে। স্বপ্ন ঘুমে ও জাগরণে। স্বপ্ন সুখদোলার স্বপ্ন-দুঃস্বপ্নের। তুমুল নাটকীয়তা ছাড়া কোনো স্বপ্নই রচিত হয় না। স্নায়ুর কম্পনে সব কিছুই ভিন্ন রূপ লাভ করে। এসবই আছে দালির শিল্পে।

সাদা চোখে দেখা পৃথিবীর বাস্তবতা আচম্বিতে বদলে যায় কিউবিজমে। কিউবিক পিকাসো ছিলো উঠতি যুবক দালির স্বপ্নপুরুষ। প্যারিসে এসেই দালি পিকাসোর সঙ্গে দেখা করেন। দালি বলেছিলেন, ‘আমি লুভরে না গিয়ে আপনার কাছে এসেছি।’ মহাতপা ঋষি পিকাসোর অসংকোচ উত্তর, ‘আপনি একদম ঠিক কাজটি করেছেন।’

ফ্রয়েড, দালিকে দেখে বলেছিলেন, ‘স্পেনীয়দের মধ্যে এমন ফ্যানটিক তিনি আর দেখেননি। মানুষ মাতৃগর্ভ থেকে যে জন্মলক্ষণ নিয়ে ভূমিষ্ঠ হয়, যে অভিজ্ঞতার চক্রমণে রচিত হয় তার মনোলোক তা থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নিতে পারে না। তবে যতো দূরই যাওয়া যাক না কেন, পায়ে পায়ে যায় শৈশব।’

গালা নামে এক রমণীকে বিয়ে করেন দালি। ১৯২৯ সালে প্যারিসে দেখা হলো গালা এ্যালুয়ারের সঙ্গে। বিখ্যাত ফরাসি স্যুরিয়ালিস্ট কবি পল এ্যালুয়ারের স্ত্রী। খুব দ্রুত দালির সঙ্গে তৈরি হলো তার সম্পর্ক। গালা এ্যালুয়ার হয়ে উঠলেন দালির প্রেম-প্রেরণা। এক অপ্রতিরোধ্য আকর্ষণে সালভাদর দালি গালা এ্যালুয়ারের প্রতি চরমভাবে আকর্ষিত হলেন।

দালি শুধু যে ছবি আকাতেই সীমাবদ্ধ ছিলেন তা নয়। ১৯২৯ সালে তিনি এবং তার শিক্ষা জীবনের বন্ধু লুই বুন্যুয়েল মিলে তৈরি করেন ১৬ মিনিটের একটি শর্ট ফিল্ম নাম ‘টহ ঈযরবহ ধহফধষড়ঁ’ (অহ অহফধষঁংরধহ উড়ম)। সুররিয়ালিজম ফিল্ম এর মাঝে এটা ছিলো প্রথম দিকের মুভমেন্ট এবং প্রায় একশ বছর থেকে এই মুভিটা দর্শকদের এখনও কনফিউজড করে রেখেছে। এমনকি তিনি হিচকক-এর সঙ্গেও কাজ করেছেন, তার ‘ঝঢ়বষষনড়ঁহফ’ মুভিতে তিনি ড্রিম সিকুয়েন্সগুলো তৈরি করেছেন এবং ওয়াল্ট ডিজনি এর সঙ্গে তিনি একটি কার্টুন ফিল্ম তৈরির কাজেও হাত দিয়েছিলেন। ১৯৪৪ সালে তিনি তার একমাত্র উপন্যাস প্রকাশ করেন নাম ‘ঐরফফবহ ঋধপবং’। এমনকি তিনি একটি অপেরাও লিখেছিলেন ‘ঊঃৎব উরবঁ’ এবং তিনি মাঝে পোশাকের ডিজাইনও করেছেন। সালভাদোর দালি ১৯০৪ সালের আজকের দিনে (১১ মে) স্পেনের উত্তর কাতালোনিয়ার ফিগুয়ে শহরে জন্মগ্রহণ করেন।

লেখক : চলচ্চিত্র গবেষক ও সাংস্কৃতিকর্মী

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]