২০ লাখ ইভিএম মেশিন গায়েব?

আমাদের নতুন সময় : 11/05/2019

কাকলী সাহা, কলকাতা থেকে : বৃহত্তম গণতন্ত্রের দেশ ভারত, তার সবচেয়ে বড় লোকতন্ত্রের উৎসব ঘিরে আজ ভয়ংকর বিতর্ক দানা বেঁধেছে। মুম্বাই^তে ‘ফ্রন্টলাইন’ ম্যাগাজিনের একটি আর্টিকেলে দাবি করা হয়েছিলো, নির্বাচনী দপ্তর থেকে প্রায় ২০লাখ  ইভিএম মেশিন গায়েবের কথা। তারই ভিত্তিতে মুম্বাই হাইকোর্টে গত ২৭ মার্চ ২০১৮-তে ইভিএম-এর ক্রয়, সংরক্ষণ ও ডেলিভারি প্রক্রিয়ার বিষয়ে জানতে চেয়ে আরটিআই-এ মামলা দায়ের করেন মনোরঞ্জন রায়। আজ মুম্বাই হাইকোর্টের রায়ের ভিত্তিতে যে দুটি বিষয় গোটা ভারতকে নাড়িয়ে দিয়েছে তা হলো :

১) ২০ লাখ ইভিএম মেশিন নির্বাচন কমিশনে পৌঁছবার আগেই গায়েব হয়েছে।

২) মোটামুটিভাবে ১১৬ কোটি টাকার আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছে।

সতেরোতম লোকসভা নির্বাচনের এখনো দুই দফা ভোট বাকি রয়েছে, সেক্ষেত্রে এতো বড় চমক বিরোধী দলগুলোর জন্যে যথেষ্ট আশংকা সৃষ্টি করেছে।

প্রশ্ন উঠছে ১) এই ২০ লাখ ইভিএম মেশিন কোথায় গেলো? ২) এই খবর থাকা সত্ত্বেও নির্বাচন কমিশন কেন চুপ রইলো এবং কাউকে কিছু না জানিয়ে যথাসময়ে নির্বাচন-প্রক্রিয়া দ্রুততার সঙ্গে শুরু করে দিলো?

আরো প্রশ্ন উঠেছে, আর্থিক কেলেঙ্কারি তো রয়েইছে। তবে এই গায়েব হওয়া ইভিএম মেশিন কি করে গায়েব হলো এবং সেগুলো এখন কোথায়, কার দখলে আছে? নিঃসন্দেহে প্রশ্নের তির শাসকদলের দিকেই রয়েছে। তবে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা কতোটা বিশ্বাসযোগ্য বা নির্ভরযোগ্য? এবারের নির্বাচনে বরাবরই বিরোধীরা ইভিএম-এর বিশ্বাসযোগ্যতা ও নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে আসছিলো। এই ঘটনা তাতেই সিলমোহর দিলো বলে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]