ওয়ালিউর রহমান বললেন, মিয়ানমারকে বাণিজ্যিক কলোনিতে রূপান্তর করার জন্য চীন রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চাইছে না

আমাদের নতুন সময় : 12/05/2019

আমিরুল ইসলাম : ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেছেন, রোহিঙ্গা শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশে^র জন্য বড় হুমকি। রোহিঙ্গা সমস্যাটা কোন দিকে রূপ নিচ্ছে জানতে চাইলে সাবেক রাষ্ট্রদূত ওয়ালিউর রহমান বলেছেন, চীন মিয়ানমানকে বাণিজ্যিক কলোনি হিসেবে রূপান্তর করতে চাচ্ছে বলে বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের রেখে দিতে বলছে।

আমাদের নতুন সময়কে তিনি বলেন, ব্রিটিশ হাইকশিনার নতুন কিছু বলেননি। আমরা অনেক আগে থেকে যেটা বলে আসছি সেটাই বলেছেন তিনি । বাংলাদেশ একটি ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। এর ভেতর যদি এতোগুলো রোহিঙ্গাকে আমাদের খাওয়াতে-পরাতে হয় তাহলে আমাদের জন্য বড় রকমের সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। মিয়ানমার সহজে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেবে না। ২২ নভেম্বর ২০১৭ সালে মিয়ানমার বাংলাদেশের সঙ্গে প্রত্যাবসান চুক্তি করেছে সে চুক্তিতে অনেক বিষয় উল্লেখ রয়েছে। এ চুক্তি কার্যকর হচ্ছে না মিয়ানমারের অনীহার কারণে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চীন একটা বড় ফ্যাক্টর। চীন মিয়ানমারকে তাদের একটা কলোনি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাচ্ছে সেখানে ভারত ও রাশিয়ারও স্বার্থ রয়েছে। নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে শোনা যাচ্ছে চীন রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে ফেরত না পাঠানোর কথা বলেছে। চীন আমাদের রোহিঙ্গাদের রেখে দিতে বলছে, তারা রোহিঙ্গাদের লালন-পালনের ব্যবস্থা করবে। বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিসিয়েটিভ এটা চীনের এক ট্রিলিয়ন ডলারের একটা গ্লোবাল প্রজেক্ট। মিয়ানমারের রাখাইনের ভেতর একটা বড় পোর্ট তারা করেছে। সেখান থেকে ইন্দো-প্যাসেফিক অংশ দিয়ে শুরু করে আফ্রিকা পর্যন্ত তারা যাবে। কেনিয়া ও জিবুতিতেও তারা পোর্ট তৈরি করেছে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ এখন একটা বৈশি^ক রাজনীতির মধ্যে পড়ে গেছে রোহিঙ্গাদের নিয়ে। এ অবস্থায় আমাদের করণীয় হচ্ছে চীনকে ম্যানেজ করা। আমাদের আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে হবে। আমাদের শক্তভাবে মিয়ানমারকে বলতে হবে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার জন্য। বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর সাহায্য নিতে হবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য। চীন আমাদের বন্ধ রাষ্ট্র হওয়ায় তাদের বুঝিয়ে বলতে হবে যে, রোহিঙ্গারা আমাদের দেশ থেকে যদি জঙ্গিগোষ্ঠীতে পরিণত হয় তাহলে তাদের জিনজিয়াং প্রদেশে যে উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায় রয়েছে তাদের ওপরও জঙ্গিদের প্রভাব পড়তে পারে। আমাদের আন্তর্জাতিক সহায়তা নিতে হবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য। কূটনীতিক এমন কোনো সমস্যা নেই যেটা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা যায় না। কোনো অবস্থাতেই রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে রাখা যাবে না। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সাহায্য না করলে, দরকার হলে আমরা রোহিঙ্গাদের জোর করে বের করে দেবো। চীনের কথায় রোহিঙ্গাদের রেখে দিলে এটা আমাদের জন্য আত্মঘাতী হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]