• প্রচ্ছদ » » নাটকের নতুন ফর্ম হচ্ছে শ্রæতিনাটক : রতন কুমার ঘোষ


নাটকের নতুন ফর্ম হচ্ছে শ্রæতিনাটক : রতন কুমার ঘোষ

আমাদের নতুন সময় : 12/05/2019

লিয়ন মীর : নাটকের বিবর্তনের পথে নতুন একটা ফর্ম হচ্ছে শ্রæতিনাটক। আবার বলা যায় চলমান নাটকের ভিন্ন ধারার উপস্থাপন হচ্ছে এই শ্রæতিনাটক। শ্রæতিনাটক উপস্থাপনের ক্ষেত্রে কোনো কায়িক অভিনয় নেই, পুরোটাই বাচিক। পুরোটাই শব্দের খেলা। শব্দ ব্যবহার করেই এই নাটক উপস্থাপন করতে হয়। যেসব অভিনেতা-অভিনেত্রী মঞ্চে থাকে, তারা কণ্ঠস্বর দিয়ে তাদের অভিনয়কে প্রকাশ করেন। দর্শকের সামনে এই নাটক উপস্থাপনের ক্ষেত্রে হাত-পা নাড়ানো বা অন্য কোনো অঙ্গভঙ্গি প্রদর্শনের কোনো সুযোগ নেই। আমাদের নতুন সময়ের সঙ্গে আলাপকালে শ্রæতিনাটক সম্পর্কে এভাবেই ব্যাখ্যা দিলেন কলকাতার শ্রæতি নাটকের দল ‘শৃণ¦ন্তুু’র সভাপতি রতন কুমার ঘোষ।
তিনি বলেন, মঞ্চনাটকের মতো শ্রæতিনাটকও মঞ্চে উপস্থাপন করা হয়, কিন্তু মঞ্চনাটকের তুলনায় শ্রæতিনাটক অধিকতর কঠিন। মঞ্চনাটক উপস্থাপনের ক্ষেত্রে শিল্পীরা দৈহিকভাবে অভিনয় করার সুযোগ পান, কিন্তুশ্রæতি নাটকের ক্ষেত্রে এই সুযোগটা থাকে না। এখানে শুধুই কণ্ঠস্বর ব্যবহার করে অভিনয়টাকে মঞ্চে ফুটিয়ে তুলতে হয়। মঞ্চনাটকে হাসি, কান্না, সুখ, দুঃখ প্রকাশে দৈহিক অভিব্যক্তি ব্যবহার করে বিষয়টাকে জীবন্ত করে তোলা হয়। কিন্তু শ্রæতিনাটকে শুধুই কণ্ঠের খেলায় সব দর্শকের কাছে পৌঁছে দিতে হয়। তাছাড়া মঞ্চনাটকে প্রপস ব্যবহার করা হয়, একটি চরিত্রকে মঞ্চে ফুটিয়ে তুলতে প্রপস অনেকখানি সাহায্য করে। শ্রæতিনাটকের ক্ষেত্রে মঞ্চে এই প্রপসও ব্যবহার করা হয় না। যার ফলে শ্রæতিনাটক বেশ কঠিন। আবৃত্তিকাররা শ্রæতিনাটককে আবৃত্তি মনে করে না, নাটকের শিল্পীরা নাটক মনে করে না। ফলে না ঘরকা, না ঘটকা অবস্থা। এ কারণেই শ্রæতিনাটকের এখনো কোনো প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পায়নি। কেননা এটাকে নাটকের সঙ্গে রাখা হবে নাকি আবৃত্তির সঙ্গে রাখা হবে সেটা ঠিক করা যাচ্ছে না। ২০১১ সালের আগে শ্রæতিনাটক সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষ জানতো না। এমনকি বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকও শ্রæতিনাটক সম্পর্কে কোনোদিন শোনেননি। ফলে বোঝা যায় এখানে শ্রæতিনাটক ছিলো না। শ্রæতিনাটক নিয়ে আমি প্রথম বাংলাদেশে এসেছি। তবে শ্রæতিনাটকের বয়স এবেকারে কম নয়, আবার বেশিও বলা যাবে না। হিসাব করে দেখেছি এর বয়স প্রায় ৫০ বছর হয়ে গেছে। শুরুর দিকে এর কোনো আনুষ্ঠানিক ফর্ম ছিলো না বা তেমন কোনো চর্চাও ছিলো না। গত বিশ বছর ধরে শ্রæতিনাটক আনুষ্ঠানিক একটা ফর্ম নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। দিনে দিনে চর্চা বৃদ্ধি পাচ্ছে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কলকাতাসহ গোটা পশ্চিম বাংলায় এখন হয়তো সব মিলিয়ে একশো থেকে দেড়শো মঞ্চনাটকের দল আছে। কিন্তু শ্রæতিনাটকের দল আছে প্রায় এক হাজার। মঞ্চনাটকের তুলনায় শ্রæতিনাটকের খরচ কম বলেই মঞ্চনাটকের দল কমে শ্রæতিনাটকের দল বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি বলেন, একটি মঞ্চনাটক মঞ্চস্থ করতে প্রায় দুইলাখ টাকা খরচ হয়ে যায়। এক্ষেত্রে একটি শ্রæতিনাটক দশ হাজার টাকা হলে মঞ্চস্থ করা সম্ভব। এখানে মিউজিকের জন্যই এই টাকার বড় একটা অংশ খরচ হয়ে যায়।
শ্রæতিনাটকের দৈর্ঘ্য বিশ মিনিট পর্যন্ত হয় বলে তিনি জানান। এছাড়াও আট থেকে দশ মিনিটের মধ্যেও এখন অনেক শ্রæতিনাটক করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে এখনো শ্রæতিনাটকের তেমন কোনো বিস্তার লাভ করেনি। আমার জানামতে, ‘শব্দ নোঙ্গর’ নামে একটি শ্রæতিনাটকের দল আছে। শ্রæতিনাটকের শিল্পী হতে হলে প্রধানত প্রমিত বাংলায় কথা বলার দক্ষতা থাকতে হবে। বাংলাদেশের নাট্যদলগুলো যদি তাদের দলগুলোতে শ্রæতিনাটককে নতুন আইটেম হিসেবে যুক্ত করে নেয়, তাহলে মঞ্চনাটকের দলগুলো বেঁচে যাবে এবং শ্রæতিনাটকের বিস্তার লাভ করবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]