পরিকল্পিতভাবে দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্র বানানো হচ্ছে?

আমাদের নতুন সময় : 12/05/2019

অসীম সাহা : বিএনপির নিঃসঙ্গ মহাসচিব বলেছেন, পরিকল্পিতভাবে দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্র বানানো হচ্ছে! ইঙ্গিতের তিরটা যে তিনি শেখ হাসিনা সরকারের দিকেই তাক করে কথাটা বলেছেন, সেটা বুঝতে কারোরই অসুবিধা হবার কথা নয়। তিনি বলেছেন, বর্তমান সরকার ইচ্ছেকৃতভাবেই ষড়যন্ত্র করে এ-ধরনের ভূমিকা পালন করছেন, যাতে দেশের অস্তিত্বই না থাকে! আমি ভেবেছিলাম, মির্জা ফখরুল শিক্ষিত, মাথায় ঘিলুটিলু আছে; কিন্তু শিক্ষিত মানে ডিগ্রিধারী হলেই যে রাজনীতির কলাকৌশল বুঝবেন, এমন কোনো কথা নেই। অনেক নেতাকে দেখেই আমরা তা শিখি। মির্জা সাহেবকে দেখেও আবার শিখলাম। নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে বৌকে মা ডাকার অভ্যাস যাদের মজ্জাগত, বিএনপি নেতাদের অনেককেই এখন সে-রোগে ধরেছে এবং এর কোনো ঔষধ এখনও আবিষ্কৃত হয়নি। তাই অদূর ভবিষ্যতে এর নিরাময়েরও কোনো সম্ভাবনা দেখি না! অতএব ধরে নেয়া যায়, বিএনপি এই রেকর্ড বাজাতেই থাকবে। তবে মির্জা ফখরুল প্রেসক্লাবের যে অনুষ্ঠানে এ-কথা বলেছেন, সেখানে বিএনপির আর এক সিনিয়র নেতা নজরুল ইসলাম খান একটি সত্যি উচ্চারণ করেছেন যে, নিজেদের ব্যর্থতার জন্য তারা এখনো তাদের নেত্রী খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করতে পারেননি। অতএব ‘উদোর পি-ি বুধোর ঘাড়ে’ চাপাবার এই কৌশল যে আর জনগণ নেবে না, সেটা মির্জা সাহেব না বুঝলেও বিএনপির অনেক নেতা-কর্মীই বুঝে ফেলেছেন। তাই এখন বিএপির অনেকে দলত্যাগ করতে শুরু করেছেন। তাদের শরিকদের মধ্যে জনতা পার্টির আন্দালিভ পার্থ জোট ত্যাগ করেছেন, কাদের সিদ্দিকী আলটিমেটাম দিয়েছেন, জুনের মধ্যে জোটের ভেতরকার অসঙ্গতি দূর না করতে পারলে তার দল জোট ত্যাগ করবে। ড. কামাল হোসেনের ঐক্যফ্রন্ট মোস্তফা মহসিন মন্টুর মতো ঘাগু নেতাকে বাদ দিয়ে আনাড়ি ড. রেজা কিবরিয়াকে দলের সেক্রেটারি বানিয়েছেন। নিজেরা তো গলা জলে ডুবেই ছিলেন, এবার পুরো ডুববেন, তার ব্যবস্থা ড. কামাল নিজ হাতেই করে গেলেন। অতএব মির্জা ফখরুলের এই প্রলাপ যে সকলের মধ্যেই সংক্রমিত হবে, তার আলামত ইতোমধ্যেই লক্ষ করা যাচ্ছে। তাই মির্জা ফখরুলের কথাকে গুরুত্ব দেয়া মানে পাগলকে পাথর ছুড়ে মারার সুযোগ করে দেয়া। শেখ হাসিনা নিশ্চয়ই অতোটা নির্বোধ নন। আশা করি, বিএনপি এবং ড. কামালরা তা হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছেন। আরো বেশি টের পেতে গেলে নিজেদের অস্তিত্বই বিলুপ্ত হয়ে যাবে, ফখরুলের মতো দিগ্গজরা সে-কথাটি মনে রাখলে নিজেদের জন্যেই ভালো।

শেখ হাসিনা এতোটা বেকুব নয় যে, দেশকে অকার্যকর করে তিনি নিজেই প্রধানমন্ত্রিত্বের পদ হারানোর ঝুঁকি নেবেন! মনে রাখতে হবে, তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কন্যা। তাঁর হাতের চেয়ে নিরাপদ হাত এই সময়ে দেশে আর কার আছে, যিনি বাংলাদেশকে তার মর্যাদাসহ পৃথিবীর মানচিত্রে উর্ধ্বে তুলে রাখতে পারেন?

লেখক : কবি ও সংযুক্ত সম্পাদক, দৈনিক আমাদের সময়

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]