বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট দিয়ে সম্প্রচার শুরু হচ্ছে আজ, আওতায় আনা হবে এটিএম বুথ

আমাদের নতুন সময় : 12/05/2019

স্বপ্না চক্রবর্তী : মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর উৎপেক্ষণের এক বছর পূর্ণ হয়েছে গতকাল শনিবার। ২০১৮ সালের ১১ মে রাত ২টা ১৪ মিনিটে এই স্যাটেলাইটটি যুক্তরাষ্ট্রের কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপন করে মহাকাশ প্রযুক্তি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান স্পেস এক্স। বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আজ থেকে বাংলাদেশের সব টিভি চ্যানেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ থেকে সেবা নেবে বলে জানিয়েছেন টেলিযোগাযোগ ও আইসিটি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার।

গতকাল শনিবার তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, রোববার থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট দিয়ে টিভি চ্যানেলগুলো সম্প্রচার শুরু করবে। এ ব্যাপারে সব প্রস্তুতি চূড়ান্ত করা হয়েছে। তিনি বলেন, আগামী ১৯ মে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান হবে। এ অনুষ্ঠানে স্যাটেলাইটটির বহুমুখী ব্যবহারের ওপর কয়েকটি প্রদর্শনী হবে। এছাড়া অনলাইন ব্যাংকিং লেনদেনে সাইবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার, সব টিভি চ্যানেলকে স্যাটেলাইটের আওতায় আনা এবং এ স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ভাসানচরে (যেখানে রোহিঙ্গাদের স্থানাস্তরের কথা রয়েছে) ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিত করা হবে। স্যাটেলাইট থেকে ক্যাবল টিভি দেখার সেবা ‘ডাইরেক্ট টু হোম’ বা ডিটিএইচ সেবাও নিশ্চিত করা হবে।

এই স্যাটেলাইট থেকে আর্থিক সফলতা কতটুকু হয়েছে জানতে চাইলে বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেছেন, আসলে স্যাটেলাইট এক বছর হলেও আমরা বুঝে পেয়েছি নভেম্বরে। এর আগে এটি ফ্রান্সের থ্যালাস এলিনিয়া স্পেসের নিয়ন্ত্রণে ছিল। তারা গাজীপুরে গ্রাউন্ড স্টেশনে আমাদের ঢুকতেই দেয়নি। আমরা পুরো নিয়ন্ত্রণ হাতে পাওয়ার পর বেশ কিছু চুক্তি ইতিমধ্যে করা হয়েছে। পুরোপুরি এর বিষয়ে বলতে আমাদের আরও কিছুটা সময় প্রয়োজন।

টিভি চ্যানেলগুলো থেকে জানা যায়, আগে যেমন ছাদে লাগানো ডিশ থেকে স্যাটেলাইটে ডকুমেন্টগুলো পাঠিয়ে দেওয়া হতো এখন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সি ব্যান্ডের না হওয়ার কারণে বেশ কিছু সমস্যা পোহাতে হচ্ছে। কারণ হিসেবে তারা বলছে, তাদের অফিসের উপরে যে আর্থ স্টেশন আছে সেটা দিয়ে চালানো সম্ভব হচ্ছে না। তবে প্রতিটি স্টেশন যদি ১ কোটি টাকা করে খরচ করে তাহলে এটি সম্ভব হতে পারে। যদিও স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ তাদের আর্থ স্টেশন থেকে ক্যাবল দিয়ে সংযোগ নিয়েছে গাজীপুরের গ্রাউন্ড স্টেশনে। সেখান থেকে তারা স্যাটেলাইটে পাঠাচ্ছে। এতে ক্যাবল কাটা যাওয়ার ঝুঁকি রয়েছে বলে জানান তারা। অবশ্য বিকল্প তিনটি লাইন করা হয়েছে জানিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি টেলিভিশন চ্যানেলের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, একটা কাটা গেলে যাতে অন্যটা দিয়ে কাজ চালানো যায় সেই ব্যবস্থা হচ্ছে। তিনি জানান, প্রথম ৩ মাস ফ্রি সেবা পাওয়ার পর সবকিছু ঠিকঠাক মতো হলে টিভি চ্যানেলগুলোর সাথে স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষের একটি চুক্তি হবে। বর্তমানে প্রতিটি টিভি চ্যানেল প্রতি মাসে ২২ থেকে ২৪ হাজার ডলার দেয়। এখন সেই টাকা আর বিদেশে পাঠাতে হবে না। এটা অবশ্যই ভালো দিক। কিন্তু ঠিকভাবে কাজটা হওয়া জরুরী বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এছাড়া, ব্যাংকের এটিএম বুথ আর অনলাইনে অর্থ লেনদেন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর আওতায় আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ড. শাহজাহান মাহমুদ। তিনি জানান, ১৯ মে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের একটি বুথ এ স্যাটেলাইটের ব্যান্ডউইডথ ব্যবহার করে পরীক্ষামূলকভাবে চালানোর উদ্যোগ নেওয়া হবে। এরপর পর্যায়ক্রমে সব এটিএম বুথ কোনো দরনের ব্রডব্যান্ড সংযোগ ছাড়াই এ স্যাটেলাইটের আওতায় আনা হবে। এ সাইবার অপরাধ অনেকাংশে কমে যাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। সম্পাদনা : ইকবাল খান

 

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]