অন্য যাজ্ঞসেনী

আমাদের নতুন সময় : 14/05/2019

রুমা ব্যানার্জি

মেয়েটার মনের প্রতিবাদী আগুন নেভাতে না পেরে ওরা গায়ে ঢেলে দিয়েছিলো কেরোসিন। একটা আগুনের ফুলকি মাত্র। এখন তো সে অগ্নিতপা।…

ওরা যখন বললো, এবার ছোটো…ছুটলো মেয়েটা। অপমানের ধিকিধিকি আগুন ততোক্ষণে লেলিহান বহ্নিশিখাকে ছাপিয়ে যাচ্ছে, ছড়িয়ে পড়ছে গায়ে …আগুনের লেলিহান শিখা ফুঁড়ে জন্ম নিচ্ছে অযোনিসম্ভবা যাজ্ঞসেনী…।

একে একে পুড়ছে হাতের আর মুখের বাঁধন। ওই দগ্ধ শরীরে তখনো বিজবিজ করছে লোভী জান্তব স্পর্শ… তিলে তিলে সঞ্চিত শুদ্ধসত্তা বিসর্জিত কামাগ্নিতে হয় স্বাহা….

আজও যাজ্ঞসেনীরা প্রতীক্ষায় থাকে কোনো এক অপাপবিদ্ধ ভীমসেনের। শয়তানের বুক চিরে যে পান করবে রক্তের ধারা। নারীকে দেয়া নির্লজ্জ ব্যাভিচারীর যৌনক্ষুধার চরম নিবৃত্তি ঘটাবে মৃত্যুতে।

অথবা আসুক আরো এক দশানন, জানকিঅঙ্গ স্পর্শ করার অপরাধে ছারখার হয়ে যাবে পৌরুষধর্মের চোখরাঙানির রাজত্ব।

সমাজ তো থাকবেই অন্ধ ধৃতরাষ্ট্র সেজে। ধর্মের নিভে যাওয়া ধিকিধিকি আগুনে জ্বলবে কটা মোমবাতি, কয়েকটা বুক হুহু করা কবিতা অথবা রক্তের ছিটেফোঁটা। তারপর নিমজ্জিত হবে রোজকার দিননামচায়।

আজো যাজ্ঞসেনী, তুমি শুধুই ভোগ্যা। তখনকার বীর পাÐব হোক বা আজকের পুরুষপুঙ্গব অক্ষম ক্লীবসম সকলে শুধু মাথা নীচু করে থাকবে, লজ্জায় অবনত হবে তোমার অধিকারের লড়াই দেখে।

সময় এসেছে অধিকার ছিনিয়ে নেবার। এ-অধিকার জীবনের। নয় তা পুরুষের দয়ার দান। পোড়ে পুড়ুক আরো কয়েকশত মেয়ের শরীর। সেই দগ্ধাবশেষ থেকে জন্ম নিক শতকোটি যজ্ঞাগ্নিসম্ভূতা অন্য এক যাজ্ঞসেনী।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]