ঘুষ বাণিজ্য ও অদক্ষ ব্যক্তিদের পরিচালনার কারণেই বিমান ডুবছে, বলে মনে করেন ক্যাপ্টেন আলমগীর সাত্তার

আমাদের নতুন সময় : 14/05/2019

জুয়েল খান : বাংলাদেশ বিমানের প্রত্যেকটা জায়গাতে প্রচুর পরিমাণে দুর্নীতি হচ্ছে যার কারণে বিমান লাভ করতে পারছে না। শুধু লাভবান হচ্ছে এর সাথে জড়িত ব্যক্তিরা। আলাপকালে একথা বলেছেন, বাংলাদেশ বিমানে সাবেক ক্যাপ্টেন আলমগীর সাত্তার।

তিনি বলেন, এতোবছর বয়স হলো বাংলাদেশ বিমানের কিন্তু এখনও আমাদের ভাড়াভিত্তিক বিমানের দিকে ঝুঁকতে হচ্ছে। এর পেছনে দুইটা কারণ আছে, প্রথমত আমাদের নিজেদের বিমান কেনার মতো সামর্থ নেই বিষয়টা এমন মনে হলেও সঠিক নয়। আমরা বিমান কেনার মতো সামর্থ রাখি। আর দ্বিতীয়ত হচ্ছে ভাড়া বিমান আনলে বাংলাদেশ বিমানের লোকসান হলেও যে কর্মকর্তারা বিমান ভাড়া করার সাথে জড়িত থাকেন তাদের লাভ হচ্ছে। এতে দেশের লোকসান, ব্যক্তির লাভ। আর এই ভাড়াভিত্তিক বিমান আনা হচ্ছে কিন্তু চালানোর জন্য দক্ষ ব্যবস্থাপনা করা হচ্ছে না যার ফলে ভাড়া করে বিমান এনে বসিয়ে রাখা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, অদক্ষ ব্যক্তিদের দিয়ে বিমান পরিচালনা কারণে দিন যাচ্ছে আর বিমানের কাঠামো নড়বড়ে হয়ে যাচ্ছে। এর সাথে আছে বিমানের বিভিন্ন পদে নিয়োগ পাওয়ার জন্য ঘুষ বাণিজ্য। বিমানের একজন সাধারণ কর্মচারি থেকে শুরু করে পাইলট পর্যন্ত নিয়োগে চলছে ঘুষের ব্যবহার। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, যে ব্যক্তি নিজের শতভাগ যোগ্যতা না থাকা সত্ত্বেও ঘুষের মাধ্যমে চাকরি পেলেন সেই ব্যক্তি কিধরনের সেবা প্রদান করবে। সুতরাং বিমানকে স্বচ্ছ করতে হলে শুরু থেকে শুরু করতে হবে। প্রথমেই নিয়োগের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা আনতে হবে। তারপরে বিমানের কাজের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা আনতে হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]