• প্রচ্ছদ » » মনস্তাত্তি¡ক কারণে ধর্ষণ বাড়ছে, বললেন ডা. তাজুল ইসলাম


মনস্তাত্তি¡ক কারণে ধর্ষণ বাড়ছে, বললেন ডা. তাজুল ইসলাম

আমাদের নতুন সময় : 14/05/2019

জুয়েল খান : সমাজে কিছু মানুষ আছে যাদের বিবেকবোধ ভালোভাবে তৈরি হয় না। ছোটবেলা থেকেই তাদের ভালো-মন্দ বিবেচনাবোধ থাকে না। তারা শুধু ভোগ করতে চায়, নিজের যেটা পেতে ইচ্ছা করে সেটা পাওয়ার জন্য কোনো ধরনের নৈতিকতার দিকে তাকায় না। ন্যায়-অন্যায়, সামাজিক-অসামাজিক কোনো কিছুই বিচার বিবেচনা করে না। তারা লোভ-লালসা, কামনা, বাসনাকে পূরণ করার জন্য অপরাধ করে থাকে। আবার কারো কারো বিবেক তৈরি হয়েছে কিন্তু পরবর্তী পর্যায়ে সামাজিক কারণে বা বিভিন্ন রকমের প্রলোভনের কারণে বা সঙ্গদোষে বিভিন্ন অপরাধে জরিয়ে পড়ে বা বিভিন্ন ধরনের অসামাজিক কাজ করতে করতে অভ্যস্ত হয়ে পড়লে তখন আর ভালো খারাপের বিচার বিবেচনা করার মতো অবস্থা থাকে না। এরাই আস্তে আস্তে সমাজের জঘন্য অপকর্ম করে থাকে, এরাই ধর্ষণের পরে মানুষকে মেরে ফেলতে পারে এবং এটা তাদের কাছে স্বাভাবিক কাজ মনে হয় এমনটাই মনে করেন মনোবিজ্ঞানী ডা. তাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ধর্ষণ বাংলাদেশের একটা জঘণ্য অধ্যায়ের নাম। মানব সভ্যতার এই পর্যায়ে এসে যদি আমাদের সমাজে নারী নিরাপদ না থাকতে পারে তাহলে এই সভ্যতাকে আমরা কিসের সভ্যতা বলবো। যেখানে নারী-পুরুষ মিলে সমাজ এবং জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে, সেখানে পুরুষের কাছে নারীকে লাঞ্চিত হতে হচ্ছে। ধর্ষণ কেন বাড়ছে বা ধর্ষণ কেন করা হচ্ছে এই বিষয়টা নিয়ে ভাবার মতো যথেষ্ট সময় এসেছে। এখনই এই সমস্যা থেকে সমাজকে মুক্ত করতে হবে। তা না হলে নারী-পুরষের কাছে আসতে ভয় পাবে, যার ফলে আমাদের সুষম উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। ধর্ষণ মূলত একটা মনস্তাত্তি¡ক বিষয়। এই বিষয়কে সমাধান করতে হলে মনস্তাত্তি¡কভাবেই এর সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। পাশাপাশি আমাদের ধর্মীয় মূল্যবোধ এবং মানবিকতার শিক্ষাকে আরো বেশি জাগ্রত করতে হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]