রাঙ্গামাটির চায়না ও বোম্বে লিচু সরবরাহহচ্ছে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে

আমাদের নতুন সময় : 14/05/2019

এইচ এম জামাল: বাজারে আসতে শুরু করেছে রাঙ্গামাটির পাহাড়ি এলাকায় উৎপাদিত টস টসে রসালো লিচু। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে এসব লিচু যাচ্ছে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। বাসস।

স্থানীয়দের  মতে, জেলায় এ বছরও লিচুর বাম্পার ফলন হয়েছে। এরই মধ্যে বাজারে এসেছে বোম্বে জাতের লিচু। আসতে শুরু করেছে চায়না-২, চায়না-৩ জাতের লিচু। তবে বাজারে চায়না ও বোম্বে জাতের লিচুর চাহিদা বেশি। তাই এসব জাতের লিচু চাষাবাদে ঝুঁকছেন চাষিরা। এই তিনজাতের দেশি লিচু আবাদ হচ্ছে পাহাড়ে। কৃষি বিভাগ জানিয়েছেন, চলতি বছর জেলায় একহাজার ৮৩০ হেক্টর জমিতে লিচু চাষ হচ্ছে এবং হেক্টর প্রতি লিচু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে সাড়ে আট মেট্রিকটন। রাঙ্গামাটি সদরের বালুখালী, জীবতলী, মগবান, বন্দুকভাঙ্গা, সাপছড়ি, কুতুকছড়ি, কাপ্তাইয়ের নাভাঙ্গা, ওয়াগগা, বড়াদম, রাইখালীসহ জেলার বিভিন্ন পাহাড়ি এলাকায় লিচুর ব্যাপক চাষাবাদ হচ্ছে। টসটসে রসালো ফরমালিনমুক্ত এ লিচুর প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

বিভিন্ন উপজেলায় উৎপাদিত লিচু চাষিরা ইঞ্জিনবোটে করে রাঙ্গামাটি শহরের সমতাঘাট, তবলছড়ি, পৌর ট্রাক টার্মিনাল এবং রির্জাভ বাজারে সরবরাহ করছেন। সেখান  থেকে পাইকারী ব্যবসায়ীরা কিনে বিভিন্ন জেলার নিয়ে যাচ্ছেন।

চাষিরা জানান, বোম্বে লিচুর আবাদে পাহাড়ে উচ্চফলন পাওয়া যাচ্ছে। পাশাপাশি, পাহাড়ে চায়না-২ ও চায়না-৩ জাতের লিচুর চাষাবাদ হচ্ছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, কয়েক বছর আগেও এখানে রাজশাহী, দিনাজপুর, পাবনাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে লিচু আমদানি হতো। বর্তমানে পাহাড়ে উৎপাদিত লিচু বাজারজাত হয়ে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়।

নানিয়াচর থেকে আসা কৃষক রবি মোহন চাকমা জানান, এবছর এখন পর্যন্ত তিনি একলাখ টাকার চায়না-২ জাতের লিচু বিক্রি করেছেন। তিনি আশা করছেন আরো একলাখ টাকার লিচু বিক্রি করতে পারবেন। রাঙ্গামাটি কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপপরিচালক পবন চাকমা বলেন, ‘বিগত দুইবছরের তুলনায় এ বছর জেলায় লিচুর ফলন ভালো হয়েছে। চায়না-২ এবং চায়না-৩ জাতের লিচু বাজারে পুরোদমে আসতে শুরু করলে কৃষকরা লাভবান হবেন।’




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]