বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ইতিহাস ও ১৯৭৫ সালে পদযাত্রা

আমাদের নতুন সময় : 15/05/2019

আক্তারুজ্জামান : বিশ্বকাপ হলো বিশ্বসেরা দলগুলো নিয়ে আয়োজিত শ্রেষ্ঠত্বের প্রতিযোগিতা। ফুটবল, আইস হকি, টেবিল টেনিস বিশ্বকাপের পথচলা শুরু দুই মহাযুদ্ধের মাঝের সময়ে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ওই পদাঙ্ক অনুসরণ করে ভলিবল, ব্যাডমিন্টন, বাস্কেটবল, রাগবি লিগ। ১৯৭১ আসতে আসতে হকিও চলে আসে সেই দলে। কিন্তু ক্রিকেট এক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে ছিল। নানান জল্পনা-কল্পনার পর ১৯৭৫ সালে বসে প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপ।

তবে ১৯১২ সালে ক্রিকেটে ওই ধরনের চেষ্টা হয়েছিল একবার। তখনকার টেস্ট খেলুড়ে তিন দেশ অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিয়ে আয়োজিত হয় চ্যাম্পিয়নশিপ। কিন্তু একেকটি খেলাই যদি হয় পাঁচ দিন করে, তাহলে যে বিশ্বকাপ শেষ করতে লেগে যাবে দীর্ঘ সময়। ওই সমস্যার সমাধান নিয়ে এলো ওয়ানডে ক্রিকেট। ১৯৭১ সালের ৫ জানুয়ারি এক দিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ চালু হল বলেই এর চার বছরের মধ্যে শুরু হয়েছিল ক্রিকেট বিশ্বকাপ।

১৯৭১ সালের ৫ জানুয়ারি পথচলা শুরুর পর ১৯৭৫ সালের ৭ জুন প্রথম বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ মাঠে গড়ানোর আগ পর্যন্ত মোট ওয়ানডে হয়েছে ১৮টি। অথচ ওই সময়ে বিশ্বজুড়ে আয়োজিত টেস্ট ম্যাচের সংখ্যা ছিল ৮৪টি। ১৯৭৫ সালের ‘ইংলিশ সামার’-এর ১৫ টি দিন বিশ্ব পরিচিত হলো নতুন এক ক্রিকেট বিশ্ব মানচিত্র।

১৯৭৫ বিশ্বকাপ : ক্রিকেটের প্রথম বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব দেয়া হয় জন্মদাতা দেশ ইংল্যান্ডকে ১৯৭৩ সালে। ঐতিহ্য ও অবকাঠামোগত সামর্থ্য বিবেচনায় রেখেই এক্ষেত্রে দেশটি নির্বাচন করা হয়। ইংল্যান্ডের ৫টি শহরের ৬টি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো। তখনকার সময় ওয়ানডে ক্রিকেট খেলা ছিল ৬০ ওভার প্রতি ইনিংস। ১৯৭৫ সালের ৭ জুন শুরু হয়ে টুর্নামেন্ট শেষ হয় ২১ জুন। আর স্পন্সর প্রুডেনশিয়াল ইন্সুরেন্সের কাছ থেকে এক লাখ পাউন্ড স্পন্সর পাওয়ায় প্রথম বিশ্বকাপ ক্রিকেট আসরকে ‘অফিসিয়াল’ নামকরণ ‘প্রুডেনশিয়াল কাপ’ করা হয়।

টেস্ট পরিবারের সদস্য ৬টি দেশ ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ভারত ও পাকিস্তান। এদের সঙ্গে শ্রীলঙ্কা ও পূর্ব আফ্রিকাকে নিয়ে বসে প্রথম আসর। ৮টি দলকে ২ গ্রুপে ভাগ করে লিগ পর্বের খেলা হয়। দুই গ্রুপের পয়েন্ট তালিকায় ওপরে থাকা দুটি করে দল যায় সেমিফাইনালে।

ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড, ভারত ও পূর্ব আফ্রিকাকে নিয়ে গড়া গ্রুপ ‘এ’ থেকে সেমিফাইনালে ওঠে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড দল। পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কাকে পিছু ফেলে গ্রুপ ‘বি’ থেকে ওঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও অস্ট্রেলিয়া। প্রথম সেমিফাইনালে স্বাগতিকদের স্বপ্নযাত্রা থামিয়ে দেয় অস্ট্রেলিয়া। হেডিংলিতে ৪ উইকেটের এক অসাধারন জয়ে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথম বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ফাইনালিষ্টের খাতায় নাম লেখায় চ্যাপেল ভাইদের অস্ট্রেলিয়া।

কেনিংটন ওভালের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে হেরে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে নিউজিল্যান্ডকেও। ক্লাইভ লয়েড, গর্ডন গ্রিনিজ, এলভিন কালিচরনের দারুণ ফর্মে পাঁচ উইকেটে জিতে ক্যারিবীয়রা জিতে নাম লেখায় আরেক ফাইনালিষ্টের খাতায়। আত্মবিশ্বাসের নাগরদোলায় চড়ে বসা ক্লাইভ লয়েডের ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকে আর থামাতে পারেনি কেউ।

লন্ডনের লর্ডস গ্রাউন্ডের ফাইনালে ক্যারিবীয় শক্তির বিরুদ্ধে ঝলসে উঠেও কাজের কাজ করতে পারেননি অস্ট্রেলিয়ার গিলমোর। ক্লাইভ লয়েডের ৮৫ বলে ১০২ রানের অসাধারণ সেঞ্চুরিতে ২৯১ রান তোলে ক্যারিবিয়ানরা। জবাবে অস্ট্রেলিয়া অলআউট হয় ২৭৪ রানে। অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে পাঁচ ব্যাটসম্যান রান আউট হয়। ১৭ রানে ফাইনাল জিতে প্রথম বিশ্বকাপ জিতে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

আর সফল ওই আয়োজনের মাধ্যমে পথচলা শুরু হয় ওয়ানডে বিশ্বকাপের। আনুমানিক ২৫ হাজার দর্শক মাঠে ফাইনাল উপভোগ করেছিল। লাল বল আর সাদা পোশাকে ম্যাচগুলো হয়েছে দিনের আলোতে। নিউজিল্যান্ডের গ্লেন টার্নার আসরে সর্বোচ্চ রান করেন ৩৩৩। বল হাতে সর্বোচ্চ ১১টি উইকেট নেন অস্ট্রেলিয়ার গ্যারি গিলমোর।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]