ইংরেজি কন্ডিশনাল বাক্য

আমাদের নতুন সময় : 16/05/2019

মাসুদ রানা

শর্তসাপেক্ষ বাক্যসমূহকে ইংরেজিতে ‘কন্ডিশনালস’ বলা হয়। গঠনের দিক থেকে এ বাক্যগুলো সাধারণত ‘কমপ্লেক্স সেন্টেন্স’ হয়। এতে দু’টি ক্লজ থাকে, যাদের একটি ‘ইন্ডিপেন্ডেণ্ট ক্লজ’ বা স্বাধীন উপবাক্য এবং অন্যটি ‘ডিপেন্ডেন্ট ক্লজ’ বা অধীন উপবাক্য। যেমন : If it rains, I catch cold. ক্লজটি ডিপেন্ডন্ট, কারণ স্বতন্ত্রভাবে এটি কোনো পূর্ণ অর্থ বহন করে না, কিন্তু If it rains ক্লজটি ইন্ডিপেন্ডেন্ট, কারণ স্বতন্ত্রভাবে এই ক্লজটি পূর্ণ অর্থ প্রকাশ করে। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো বাক্যের গঠন ও অর্থের ক্ষেত্রে I catch cold  ক্লজটি ‘ও পধঃপয পড়ষফ’ ক্লজটির ওপর নির্ভরশীল হলেও ঘটনা ঘটার ক্ষেত্রে সম্পর্কটি ঠিক তার উল্টো। অর্থাৎ, ‘ও পধঃপয পড়ষফ’ বা আমার সর্দি হওয়ার ঘটনাটি বাস্তবে ‘ওভ রঃ ৎধরহং’ বা বৃষ্টি হওয়ার ঘটনার ওপর নির্ভশীল। এখানে নিয়মটি হলো যে ঘটনাটি পূর্বশর্ত, তাকে বর্ণনা করতে হবে ‘ওভ’ যুক্ত করে একটি ডিপেন্ডেন্ট ক্লজ হিসেবে, আর যে ঘটনাটি শর্তের ফল, তাকে বর্ণনা করতে হবে একটি ইন্ডিপেন্ডেন্ট ক্লজ হিসেবে। ইংরেজিতে চার প্রকারের কন্ডিশনাল বাক্য আছে। প্রথমটিকে বলা হয় জিরো কন্ডিশনাল (তবৎড় ঈড়হফরঃরড়হধষ), দ্বিতীয়টি ফার্স্ট কন্ডিশনাল (ঋরৎংঃ ঈড়হফরঃরড়হধষ), তৃতীয়টি সেকেন্ড কন্ডিশনাল (ঝবপড়হফ ঈড়হফরঃরড়হধষ) এবং চতুর্থটি থার্ড কন্ডিশনাল (ঞযরৎফ ঈড়হফরঃরড়হধষ)। পরবর্তী পোস্টে এই চার প্রকারের কন্ডিশনালের কোনটি কখন ব্যবহার করতে হয় এবং কীভাবে তা তৈরি করতে হয়, তা বিস্তারিতভাবে লিখবো। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]