• প্রচ্ছদ » » গ্রেড ভালো করার অব্যাহত চাপ শিক্ষার্থীদের হতাশ করছে


গ্রেড ভালো করার অব্যাহত চাপ শিক্ষার্থীদের হতাশ করছে

আমাদের নতুন সময় : 16/05/2019

রাসেল পারভেজ

গত শতাব্দীর ষাটের দশকে যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় গ্রেডবিহীন শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করে। গ্রেড ভালো করার অব্যাহত চাপ শিক্ষার্থীদের হতাশ করছে। তারা শুধুমাত্র গ্রেড ধরে রাখার চেষ্টায় পরীক্ষার জন্যে পড়ছে কিংবা চাপ সামলাতে না পেরে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঝরে পড়ছে। যদি ভালো ফলাফলের চাপ থেকে শিক্ষার্থীদের মুক্তি দেয়া যায়, তারা আনন্দের জন্য পড়বে। তারা শেখার আনন্দ নিয়ে সারাজীবন পড়াশোনা অব্যাহত রাখবে। মেডিকেল কলেজগুলো, যেখানকার শিক্ষার্থীদের আজীবন পড়াশোনা করতে হয়, তাদের বাদ দিলে অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ই আবার পুরানো গ্রেডিং সিস্টেমে ফেরত গেছে।
এখনও সুইডেন এবং যুক্তরাজ্যের বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের বেশ কিছু ক্রেডিট গ্রেডহীন রাখার সুযোগ আছে। যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি ওফ সাসেক্সের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের প্রাপ্ত গ্রেড তাদের চ‚ড়ান্ত ফলাফলে কোনো প্রভাব রাখে না। সেসব দৃষ্টান্ত থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে সিঙ্গাপুর ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ২০১৪ সাল থেকে প্রথম বর্ষের প্রথম সেমিস্টারের সব শিক্ষার্থীদের গ্রেডহীনভাবে পড়াশোনা করার সুযোগ দিয়েছে। তাদের প্রথম সেমিস্টারে প্রাপ্ত ফলাফল তাদের চ‚ড়ান্ত গ্রেডে কোনো প্রভাব রাখবে না। এসব কোর্সের গ্রেড হবে পাস-ফেল ভিত্তিক। তারা সাফল্যের সঙ্গে কোর্স শেষ করেছে এই তথ্যের বাইরে অন্য কিছু সংযুক্ত হবে না অফিসিয়াল ট্রান্সক্রিপ্টে।
শিক্ষার্থীরা ভাবছে এই গ্রেডহীন প্রথম সেমিস্টার কলেজ পর্যায় থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রবেশ করার প্রাথমিক ধাক্কাটুকু সামলে পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের হাওয়া বুঝে ওঠা এবং মানিয়ে নেয়ার সুযোগ দেবে।
বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের ভেতরে যদি জরিপ করা হয়… বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের কোর্সগুলো… যার বড় একটা অংশ আসলে স্কুল-কলেজ পর্যায়ে পড়ানো বিষয়বস্তুর পুনরাবৃত্তি… সেসব কোর্সের গ্রেড যদি পরবর্তী পর্যায়ের সিজিপিএতে কোনো প্রভাব না রাখে তারা কি আরও আনন্দের সঙ্গে কোর্সগুলো নিতো? কিংবা তাদের যদি সুযোগ দেয়া হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদ নেয়ার সময় তারা অনধিক পাঁচটা কোর্সের প্রাপ্ত গ্রেড বাতিল করে পাস-ফেল হিসেবে চ‚ড়ান্ত ফলাফল নিতে পারবে… সেক্ষেত্রে তারা কতোটুকু আনন্দের সঙ্গে পড়াশোনা করতো? ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]