প্রিয়াঙ্কার রাজনৈতিক সৌজন্যে ঘায়েল মোদী সমর্থকরা

আমাদের নতুন সময় : 16/05/2019

বিভুরঞ্জন সরকার : ভারতের ভোটযুদ্ধের শেষ পর্ব অনুষ্ঠিত হবে ১৮ মে। ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২৩ মে পর্যন্ত। ২৩ মে জানা যাবে পরের পাঁচ বছরের জন্য কে বসবেন দিল্লির মসনদে। নরেন্দ্র মোদী ফিরে আসবেন, নাকি দেখা যাবে নতুন মুখ? শুরুতে ভারতের লোকসভা নির্বাচন যতোটা মোদীময় ছিলো, শেষদিকে এসে তা নেই। তারপরও অধিকাংশ রাজনৈতিক বিশ্লেষক মোদীকেই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এগিয়ে রাখছেন। তবে বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে যদি কোয়ালিশন সরকার গঠিত হয় তাহলে মোদীর বদলে বিজেপির অন্য কেউ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলে আশ্চর্যের কিছু থাকবে না। কংগ্রেস সরকার গঠন করলে রাজীব গান্ধী হবেন নতুন প্রধানমন্ত্রী। অবশ্য সেরকম সম্ভাবনা অত্যন্ত ক্ষীণ। আবার তৃতীয় পক্ষের সরকার হলে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে একাধিক নাম আছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে মনে করছেন কিংবা ভাবভঙ্গিতে প্রকাশ করছেন যে, তিনিই ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা এটা মনে করছেন না যে প্রধানমন্ত্রীর দৌড়ে মমতা সুবিধাজনক অবস্থায় আছেন।

ভারতজুড়ে এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রচারণা এবং হিসাব-নিকাশ। এবার নির্বাচনী প্রচার ছিলো উত্তপ্ত। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে গিয়ে শালীনতা-সৌজন্য বজায় রাখতে পারেননি ঝানু রাজনীতিবিদরাও। দেদারছে গালাগালি হয়েছে। কখনো কখনো মনে হয়েছে, এটা যেন ভোটের লড়াই নয়, কথার লড়াই। বাকযুদ্ধে মনে হয় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবাইকে টেক্কা দিয়ে এগিয়ে আছেন। তার আক্রমণ ধারা কিছুটা অশালীন এবং ঔদ্ধত্যপূর্ণ। মমতার প্রতিটি বাক্যবাণ তার দিকে বেশ মুন্সিয়ানার সঙ্গে ফিরিয়ে দিয়েছেন মোদী। কথার লড়াইয়ে কম যাননি রাহুল গান্ধীও।

নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিকে এসে সবাইকে মাত করেছেন কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। গত ১৩ মে মধ্যপ্রদেশে নির্বাচনী প্রচারণায় গিয়েছিলেন প্রিয়ঙ্কা। তার বিশাল কনভয় ইন্দোরের রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় একদল বিজেপি সমর্থক ‘মোদী’ ‘মোদী’ বলে  স্লোগান দিয়ে ওঠেন। স্লোগান শুনে প্রিয়াঙ্কা গাড়ি থামিয়ে হাসি মুখে নেমে আসেন এবং যারা স্লোগান দিচ্ছিলেন তাদের সঙ্গে হাত মেলান। তাদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘আপনার জায়গায় আপনি, আমার জায়গায় আমি- অল দ্য বেস্ট’।

প্রিয়াঙ্কার এই অপ্রত্যাশিত আচরণে ভরকে যান বিজেপি সমর্থকরা। তারা চেয়েছিলেন, প্রিয়াঙ্কাকে বিব্রত করতে, অস্বস্তিতে ফেলতে। কিন্তু প্রিয়াঙ্কা হাসি মুখে সবার সঙ্গে করমর্দন করে গোটা পরিস্থিতি ঘুরিয়ে দেন। অনেকে তার সঙ্গে ছবি তুলতেও মেতে উঠেছিলেন। ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে অনেকেই প্রিয়াঙ্কার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন। বলা হচ্ছে,  রাজনৈতিক সৌজন্যের নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন কংগ্রেসের এই ‘ভোট-ক্যাচার’ নেত্রী। রাজনীতিতে এই সৌজন্যের ধারা ভাইরাল হলেই ভালো।

লেখক : গ্রুপ যুগ্ম সম্পাদক, আমাদের নতুন সময়




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]