• প্রচ্ছদ » » রাজনৈতিক ক্ষমতা দখলের জন্য বিদ্যাসাগরের মুÐুচ্ছেদ?


রাজনৈতিক ক্ষমতা দখলের জন্য বিদ্যাসাগরের মুÐুচ্ছেদ?

আমাদের নতুন সময় : 16/05/2019

বিপ্লব পাল

ষড়যন্ত্র বা আদর্শবাদ যে কারণে যে বাঙালিই এই কাজ করুক না কেন… সে পরিষ্কারভাবে তার নিজের সত্তাকেই হত্যা করেছে। বিদ্যাসাগর বাঙালির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তার জন্যই আজকে আমরা শিক্ষিত। তার জন্যই আজ আমরা বাংলায় লিখি। এসব ভুলে বাঙালির কোনো সন্তান যখন তার মূর্তি ভাঙে, সে বাঙালির স্বাধীন সত্তাকেই আঘাত করছে।
নকশালরা ভ্রান্ত আদর্শের কারণে তাকে ভাঙতে গিয়ে নিজেরাই ভ্রষ্ট আদর্শের রোমান্টিক হঠকারী হিসেবে ইতিহাসে স্থান পেয়েছেন। এক্ষেত্রেও যারা মূর্তি ভেঙেছেন, তাদের কথা কেউ কোনোদিনই মনে রাখবে না বা সেই হঠকারী ঘৃণ্যদের তালিকাতেই তাদের স্থান হবে। ভিডিওতে যা দেখলাম, তাতে মনে হলো যারা ভাঙচুর করেছে, তারা জানেই না বিদ্যাসাগর কে। বিদ্যাসাগরের স্টাচুটাকে পাথরের খÐের মতো ভেঙে ইঁট হিসেবে ব্যবহার করছিলো। মানে লুম্পেনদের ও লুম্পেন। তবে আশপাশে সবাই বিজেপির। ভিডিওর মোটিভ এবং মোশন দেখে মনে হচ্ছে বিজেপির কিছু অশিক্ষিত অবাঙালি সমর্থকের কাজ। বাঙালির কাছে বিদ্যাসাগর দেবতুল্য। তারা বিদ্যাসাগরের স্টাচুকে ইঁট-পাথর মনে করবে, এটা হতে পারে না। সুতরাং সন্দেহের তীর বিজেপির বিরুদ্ধেই যাচ্ছে। কে ভেঙেছে পরিষ্কার নয়। রাজনীতি খুবই নোংরা খেলা। এখানে সব কিছুই সম্ভব। তাই ওই কাদা না ঘেঁটে এটাই বলি যে, খেলারও কিছু নিয়ম-কানুন থাকে। বিদ্যাসাগর, রবীন্দ্রনাথ, স্বামী বিবেকানন্দ, নেতাজি… এদেরকে নোংরা রাজনীতির খেলা থেকে দূরে রাখলেই ভালো হয়। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]