হাসপাতালের টয়লেটে উদ্ধার করা শিশুটিকেদত্তক নিতে চায় অনেকেই, সিদ্ধান্ত নেবেন আদালত

আমাদের নতুন সময় : 16/05/2019

দেবদুলাল মুন্না: ঢাকা শিশু হাসপাতালের টয়লেট থেকে গত মঙ্গলবার সকালে এক নবজাতককে উদ্ধার করা হয়। গতকাল বুধবার সারাদিন শিশুটিকে দত্তক নেওয়ার জন্য অনেক অভিভাবকই ফোন করেন। তবে শিশুটির প্রকৃত অভিভাবক খুঁজে পাওয়া যায়নি এখনও। এ ঘটনায় শেরে বাংলা নগর থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন আদালত। শারীরিক অবস্থা ভালো আছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। দুর্ভাগ্য নিয়েই যেন জন্ম শিশুটির। জন্মের পরপরই শিকার হতে হলো নির্মমতার। ফুটফুটে এই কন্যা শিশুটিকে পরম মমতায় আগলে রেখেছেন হাসপাতালের কর্মচারীর স্ত্রী পলি আক্তার। পলি আক্তার বলেন, ‘শিশুটি অনেক সুন্দর। ওর মুখের দিকে তাকালে মুখ ফেরানো যায় না।’ হাসপাতালের কর্মচারী রাসেলের স্ত্রী বলেন, আমি আসার পর থেকেই আমার হাত ধরে বসে আছে। মনে হচ্ছে রেখে একটু গেলেই কান্নাকাটি করতেছে। হাসপাতালের কর্মচারী রাসেল বলেন, কে বা কারা বাচ্চাটি যেন গেলে রেখে গেছে। সিনিয়র নার্স শিরিন আক্তার বলেন, আগের তুলনায় শিশুটি ভাল আছে। মুখে খাওয়া বন্ধ ছিল, এখন তাও শুরু করা হয়েছে।অভিভাবক না পাওয়া পর্যন্ত শিশুটিকে হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে রাখার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসক। ঢাকা শিশু হাসপাতাল আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. খন্দকার আশিকুর রহমান বলেন,‘আমরা যখন কনফার্ম হব যে, বাচ্চাটি সুস্থ আছে, কোন রকম কোন সমস্যা নেই তখনই আমরা ছুটি দিব।’ তবে শিশুটিকে কে বা কারা ফেলে গেছে সে বিষয়ে কিছুই জানাতে পারেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালের সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করে বিষয়টি তদন্ত করছে তারা। এ ঘটনায় রাজধানীর শেরে বাংলা নগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।  হাসপাতালের উদ্ধার হওয়া কন্যা শিশুটির বয়স ৫ থেকে ৭ দিন। বুধবার দুপুরে তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে ব্রিফ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। শিশুটির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে, প্রকৃত মা-বাবা খুঁজে পাওয়া না গেলে, সমাজকল্যাণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী তাকে দত্তক দেয়া হবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]