• প্রচ্ছদ » » স্বপ্ন ভাঙা শেষে নেহাতই আমি রিফিউজি হয়ে গেছি


স্বপ্ন ভাঙা শেষে নেহাতই আমি রিফিউজি হয়ে গেছি

আমাদের নতুন সময় : 17/05/2019

ত্রিপুরায় লেনিন মূর্তি ভাঙলো। তখন আমি চুপ ছিলাম। কারণ লেনিন কমিউনিস্ট ছিলেন।
উত্তরপ্রদেশে আম্বেদকর মূর্তি ভাঙলো। তখন আমি চুপ ছিলাম। কারণ আম্বেদকর দলিত ছিলেন।
তামিলনাড়–তে পেরিয়ারের মূর্তি ভাঙলো। তখন আমি চুপ ছিলাম। কারণ পেরিয়ার দ্রাবিড় আন্দোলনের নেতা ছিলেন।
ত্রিপুরায় সুকান্ত মূর্তি ভাঙলো। তখনও আমি চুপ ছিলাম। কারণ সুকান্ত ভট্টাচার্য কমিউনিস্ট ও বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের আত্মীয় ছিলেন।
ব্যারাকপুরে মৌলানা আবুল কালাম আজাদের মূর্তি ভাঙলো। আমি চুপ ছিলাম। কারণ উনি মুসলিম ছিলেন।
অসমে রবীন্দ্রনাথ মূর্তি ভাঙলো। তখনও চুপ ছিলাম। কারণ বাংলায় তো আর ভাঙেনি।
আজ বাংলায় বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙলো। এখনও চুপ থাকবো।
কারণ আমি ভারতীয় বাঙালি না।
বাংলাদেশে যখন ভাস্কর্য ভাঙা হলো
ভাবলাম আমি পৌত্তলিকতাবাদী না, ভাঙ্গুক, আমার কি
যদিও জানি রাজনীতি একদিন আমারও কিছু ভেঙে ফেলবে
তাতে ভাববো, আমি তো পলিটিক্যাল ছিলাম না।
কিন্তু সব মানুষ ও সব ধরনের সম্পর্কই রাজনৈতিক।
এটি ভাঙার রাজনীতির ভয়াবহ দৃশ্য দেখে অবশেষে
বুঝেছি। তাতে লাভ হয়নি, ততোদিনে দেশ ভাঙা, দল ভাঙা, পরিবার ভাঙা, স্বপ্ন ভাঙা শেষে নেহাতই আমি রিফিউজি হয়ে গেছি।
(সংগৃহীত কবিতা)




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]