ভিয়েতনামের প্রাণপুরুষ হো চি মিন -এর জন্মদিন আজ

আমাদের নতুন সময় : 19/05/2019

বাবলু ভট্টাচার্য :  বিশ্বের মানুষের কাছে তিনি বিপ্লবর প্রতীক। যার অনুপ্রেরণায় উজ্জীবিত হয়ে জনগণ ফরাসি ও আমেরিকান বাহিনীকে বিতাড়ন করে নতুন পতাকা উড়িয়ে ছিলোÑ তিনি ভিয়েতনামের প্রাণপুরুষ হো চি মিন। আজীবন সংগ্রামী নেতা হো চি মিনের জীবন সংগ্রাম শুরু হয়  শৈশব থেকেই। তার বাবার আর্থিক অবস্থা তেমন সচ্ছল ছিলো না। তাই দারিদ্র্যের নির্মমতা তিনি শৈশব থেকেই প্রত্যক্ষভাবে নিজের জীবন দিয়ে উপলব্ধি করেন। তাকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করার সময় নাম দেয়া হলো নগুয়েন তাত থান। এ সময় তার বয়স ছিলো দশ।

১৯০৪ সালে তরুণ হো চি মিন পাড়ি জমালেন হুয়েং শহরে। গ্রামে থাকার সময় তিনি উপলব্ধি করেন তাকে আরো অনেক জানতে হবে। পুঁথিগতবিদ্যার পাশাপাশি জানতে হবে নিজের সমাজ, মানুষ এবং মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা সম্পর্কে। ১৯০৭ সালে হো চি মিন বিদ্যালয়ের শেষসীমা বেশ কৃতিত্বের সঙ্গেই শেষ করেন। এ সময়ই শুরু হয় সারা ভিয়েতনাম জুড়ে খ- খ- ফরাসিবিরোধী বিক্ষোভ আন্দোলন। বিদেশি শাসন-শোষণ আর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে সাধারণ মানুষ এ আন্দোলন করতে বাধ্য হয়েছিলো। এ আন্দোলনে হো চি মিনের বাবা নগুয়েন সাকও যোগ দেন। পরিণতি হিসেবে শাসনগোষ্ঠী অন্যান্য আন্দোলনকারীর সঙ্গে তাকেও গ্রেফতার করে।

এদিকে হো চি মিনের বাবাকে পৌলো কন্দর কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হলো। তারপর তিনি হো চি মিনকে প্যারিস পাঠানোর চিন্তা করলেন। কিন্তু এ জন্য কারিগরি বিদ্যালয়ে পড়তে হবে তিন বছর। হো চি মিন তিন বছর সময় নষ্ট না করে একটি চাকরি জোগাড় করে ফেললেন। তারপর তিনি যাত্রা শুরু করলেন প্যারিসের পথে। প্যারিসে তিনি যে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেন তা হলো নগরকেন্দ্রিক জীবনের পঙ্কিলতা।

উন্নত বিশ্বের নেতারা যখন ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে ব্যস্ত। তখন তিনি উত্থাপন করলেন আটদফা দাবি সংবলিত এক প্রস্তাব। ভিয়েতনামী জনগণের পক্ষ থেকে ‘জাতিসমূহের অধিকার’ শিরোনামে এই প্রস্তাব উত্থাপন করা হলো। তখন সবার প্রশ্ন ছিলো কে এই প্রস্তাব উত্থাপনকারী যুবক? নওয়েন আই কুয়োক অর্থাৎ দেশপ্রেমিক নওয়েন। তারপর শুরু হলো হো চি মিনের ছদ্মনাম গ্রহণের পালা। এই প্রস্তাবই হলো সা¤্রাজ্যবাদী দস্যুদের বিরুদ্ধে তার প্রথম আঘাত। ভিয়েতনামের উপর কর্তৃত্বকারী ফ্রান্সের বুকে বসে ফরাসি উপনিবেশবাদবিরোধী তার মাতৃভূমির মুক্তির সনদ দাখিল করলেন হো চি মিন।

এ মহান নেতা ১৯৬৯ সালের ২ সেপ্টম্বর ৭৯ বয়সে মারা যান। কিন্তু তার জীবনকালে নিজ দেশের পরিপূর্ণ স্বাধীনতা দেখে যেতে পারেননি। হো চি মিন ১৮৯০ সালের ১৯ মে ভিয়েতনামের ন-ঘিয়ান প্রদেশের চুয়াগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

লেখক : চলচ্চিত্র গবেষক ও সাংস্কৃতিক কর্মী




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]