বিভক্ত বাসদের বিদ্রোহী ঐক্য : একটি অপূর্ব বিকাশ-সম্ভাবনা!

আমাদের নতুন সময় : 20/05/2019

মাসুদ রানা : একটি রাজনৈতিক দলের বিভক্তিকালে যে আবেগ ও উত্তেজনা থাকে, তা সময়ের সঙ্গে প্রশমিত হয়ে আসে। তখন বাস্তব রাজনৈতিক চিন্তা, লক্ষ্য, কর্মসূচি, নেতৃত্ব ও সাংগঠনিক পদ্ধতি-প্রক্রিয়া নির্ধারক ভূমিকা পালন করতে থাকে। বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে ১৯৭২ সালে জাসদের পর ১৯৮০ সালে প্রতিষ্ঠিত বাসদ একটা দারুণ সম্ভাবনাময় দল হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিলো। বিশেষত ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে এই দলের প্রমাণিত আবেদন ছিলো। বাসদের ছাত্র সংগঠন, যা তখন ছাত্রলীগ নামে পরিচিত ছিলো, পর পর দু’বার ১৯৮০-৮১ সালে ও ১৯৮১-৮২ সালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র-ছাত্রী সংসদ ডাকসু নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বাংলাদেশের ছাত্র সমাজের নেতৃত্ব দান করে। নেতৃত্বের ভুল ও অপরিণামদর্শিতার কারণে দলটি তার বিকাশের সম্ভাবনা হারিয়ে প্রথমে ১৯৮৩ সালে এবং তারপর ২০১৩ সালে পর পর দু’বার ভাঙনের মুখে পড়ে এখন নামকাওয়াস্তে অত্যন্ত দুর্বল শরীর ও শক্তি নিয়ে টিকে আছে।

নেতারা যে আদর্শবাদ ও বিপ্লবী তত্ত্বের কথা বলে প্রাথমিকভাবে বেশ সাফল্যের সঙ্গে দলটির বিকাশে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, পরবর্তী পরিস্থিতিতে নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে তারা সেই নেতৃত্ব দিতে ব্যর্থ হয়েছেন এবং ব্যর্থতা এসেছে নেতৃত্বের প্রয়োজনীয় বুদ্ধিবৃত্তিক, সাংস্কৃতিক ও নৈতিক বিকাশের স্থবিরতা ও কোনো কোনো ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া থেকে। আমার ধারণা, উভয় বাসদের সাধারণ সদস্য ও সমর্থক পর্যায়ে যে মানুষগুলো আছেন, তাদের আপেক্ষিক নৈতিক ও মনস্তাত্ত্বিক অবস্থান তাদের নেতাদের চেয়ে অনেক ভালো। ভালো এই অর্থে যে, এদের সম্মিলিত শক্তি যদি উপযুক্ত লক্ষ্য, কর্মসূচি, নেতৃত্ব ও সাংগঠনিক প্রকৌশল ও পরিকল্পনার অধীন আসতে সক্ষম হয়, তারা আবার একটি সম্ভাবনাময় শক্তি হিসেবে গড়ে উঠবে।

তাই আমি রূপত মনে করি, দুই বাসদের ‘কর্মী’ নামের শ্রমিকদের উচিত হবে ‘নেতা’ নামের মালিকদের বিরুদ্ধে ‘শ্রেণি সংগ্রাম’ করে ‘দুনিয়ার বাসদ এক হও’ বলে একটি ‘বাসদ ঐক্য প্রক্রিয়া’ শুরু করা। এই মুহূর্তে বাঙালি জাতি একটি নির্ভরযোগ্য রাজনৈতিক শক্তির উত্থান প্রত্যাশা করছে মনে-প্রাণে। আমার বিশ্বাস, দুই বাসদের সদস্য-সমর্থকরা যদি একটি অভিন্ন লক্ষ্য ও কর্মসূচির ভিত্তিতে তাদের নিজ নিজ হেডকোয়ার্টার্সের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে বেরিয়ে এসে একটি ঐক্য প্রক্রিয়া মিলিত হয়, তারা অচিরেই একটি অমিত রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে বিকশিত হবে। আমি আরও মনে করি, বৃহত্তর সদ-পরিবার (জাসদ ও বাসদের সকল গ্রুপ) ও বৃহত্তর বাম-পরিবারের অনেক সদস্য-সমর্থকও এদের সঙ্গে একীভূত হতে আগ্রহী হবেন এবং নতুন শক্তির প্রতি বহির্বিশ্বে থাকা বাঙালিদের সর্ব প্রকার সহযোগিতা থাকবে। ফেসবুক থেকে

 

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]