১৯ মে লোকসভা নির্বাচনের শেষ দফায় ভোটের লাইনে দাঁড়ালেন সাত রাজ্যের ৫৯টি আসনের ভোটার

আমাদের নতুন সময় : 21/05/2019

রুমা ব্যানার্জী ও অনিন্দ্র মাঝি, কলকাতা থেকে : লোকসভা নির্বাচনের অন্তিম ভোটগ্রহণ পর্ব শেষ হয়েছে। এবার ফল প্রকাশের পালা। এ দফায় ভোট হলো উত্তরপ্রদেশ ও পাঞ্জাবের ১৩টি আসন, পশ্চিমবঙ্গের ৯টি আসন, ৮টি করে আসন বিহার ও মধ্যপ্রদেশে, হিমাচল প্রদেশের ৪টি আসন, ঝাড়খ-ের ৩টি আসন এবং চ-ীগড়ের একটি আসনে।

শেষ দফার নির্বাচনের আগে রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব অত্রি ভট্টাচার্যকে সরিয়ে দিয়ে নজির গড়লো নির্বাচন কমিশন। গত ছয় দফায় হওয়া রাজনৈতিক হিংসাকে মাথায় রেখে এবার পশ্চিমবঙ্গে সুষ্ঠু এবং অবাধ নির্বাচন করাই প্রধান চ্যালেঞ্জ ছিলো কমিশনের জন্য।

পশ্চিমবঙ্গের ৯ লোকসভা কেন্দ্রে নির্বাচনী প্রচারের সময়সীমা কমিয়ে দেয়া হয়েছিলো। রাজ্যে ৯ আসনে হয়েছে ভোট গ্রহণ। শেষ দফায় রায় জানাবে যাদবপুর, কলকাতা উত্তর ও কলকাতা দক্ষিণ, দমদম, বারাসত, বশিরহাট, জয়নগর, মথুরাপুর এবং ডায়মন্ড হারবার লোকসভা কেন্দ্র।

শেষ দফায় একগুচ্ছ হেভিওয়েট প্রার্থীর হবে ভাগ্য নির্ধারণ। যার মধ্যে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মনোজ সিনহা, রবিশঙ্কর প্রসাদ, এইচ কে বাদল এবং হরদীপ সিং পুরি। এছাড়াও ভাগ্য নির্ধারিত হবে বিজেপির তারকাপ্রার্থী কিরণ খের, সানি দেওল ও রবি কিষাণের। বাংলায় ভাগ্য নির্ধারিত হবে তৃণমূল প্রার্থী সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, সৌগত রায়, তারকাপ্রার্থী মিমি চক্রবর্তী ও নুসরত জাহানের। রয়েছেন কংগ্রেস প্রার্থী শত্রুঘœ সিনহা ও মীরা কুমার।

সাত রাজ্যের ৫৯টি আসনের মধ্যে এবার সারাদেশ এবং সব রাজনৈতিক দলেরই চোখ ছিলো পশ্চিমবঙ্গের শেষ দফার ৯টি আসন। পশ্চিমবঙ্গে প্রধানত চতুর্মুখী লড়াই। প্রধান দুই প্রতিপক্ষ তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি। সঙ্গে ভোট কাটতে রয়েছে সিপিআই (এম) ও কংগ্রেস।

পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি বিশেষ নজর ছিলো পাঞ্জাবের দিকেও। কারণ শেষ দফায় একইসঙ্গে পাঞ্জাবের ১৩টি আসনে হলো ভোট গ্রহণ। মোট ১৫ লাখ ৩৫ হাজার ৭১৬ জন ভোটার। এবার পাঞ্জাবের সব রাজনৈতিক দলের নজর ছিলো রাজ্যের নতুন ভোটাদের দিকে, যার সংখ্যা ২৫ হাজার ৬৯৪ জন। পাঞ্জাবে প্রধানত লড়াই ছিলো ত্রিমুখী। ভোটযুদ্ধে ছিলো রাজ্যের শাসক দল কংগ্রেস, বিজেপি-শিরোমণি-আকালি দলের জোট ও আম আদমি পার্টি।

উত্তরপ্রদেশে ১৩টি আসনের মধ্যে বিশেষ করে সকলের নজর ছিলো প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কেন্দ্র বারাণসীর দিকে। মোদির জয় নিশ্চিত করতে আসরে ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। শেষ দফায় উত্তরপ্রদেশে মোট ১৬৭ জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারিত হবে। এছাড়া বিহারের ৮টি আসনে  ভোট যুদ্ধে নেমেছিলেন ১৫৭ জন প্রার্থী। মধ্যপ্রদেশের ৮টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন ৮২ জন।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]