• প্রচ্ছদ » » রাজ্য রাজনীতির সমীকরণে বামফ্রন্ট এবং বিজেপি, দু’পক্ষেরই অবস্থান তৃণমূলবিরোধী
    রাজ্য রাজনীতির সমীকরণে বামফ্রন্ট এবং বিজেপি, দু’পক্ষেরই অবস্থান তৃণমূলবিরোধী


রাজ্য রাজনীতির সমীকরণে বামফ্রন্ট এবং বিজেপি, দু’পক্ষেরই অবস্থান তৃণমূলবিরোধী
রাজ্য রাজনীতির সমীকরণে বামফ্রন্ট এবং বিজেপি, দু’পক্ষেরই অবস্থান তৃণমূলবিরোধী

আমাদের নতুন সময় : 25/05/2019

অঞ্জন রায়

ভারতের নির্বাচন কমিশনের প্রাথমিক হিসাব
বলছে… পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির ভোট ৩৮.৫ শতাংশ, অন্যদিকে বামেদের ভোট নেমে এসেছে প্রায় ৬ শতাংশে। তিন বছর আগেই পশ্চিমবঙ্গের লোকসভা নির্বাচনে বামফ্রন্ট পেয়েছিলো প্রায় ২৬ শতাংশ ভোট। তখন বিজেপির ছিলো ১০.১৬ শতাংশ ভোট। সেই হিসাবে এবারে বামফ্রন্টের ২০ ভোট ক্ষয় হয়েছে। বিজেপির বেড়েছে ১২.৫ শতাংশ। এবারের নির্বাচনে ভারতের সামাজিক মাধ্যমে ঘুরতে থাকা একটি ¯েøাগান এখন পশ্চিম বাংলার রাজনৈতিক মানচিত্রে প্রতিষ্ঠিত হলে ‘বামের ভোট রামে’!
রাজ্য রাজনীতির সমীকরণে বামফ্রন্ট এবং বিজেপি, দু’পক্ষেরই অবস্থান তৃণমূল বিরোধী। এবারে লোকসভা নির্বাচনে এই দু’পক্ষের ভোট কেন মিশে গেলো, তার তিন দফা কারণ উঠে আসছে ভারতের বিশ্লেষকদের প্রাথমিক আলোচনায়।
১. দেশে নরেন্দ্র মোদীর সরকারের প্রত্যাবর্তনকে ঠেকানোর চেয়েও রাজ্যে তৃণমূলের হাত থেকে ‘নিস্তার’ পাওয়াকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন বাম কর্মী-সমর্থকেরা। ২. কংগ্রেসের সঙ্গে জোট শেষ মুহূর্তে ভেস্তে যাওয়ায় হতাশা তৈরি হয়েছিলো বাম শিবিরের বড় অংশে। কংগ্রেসের সঙ্গে থাকলে কেন্দ্রে বিকল্প সরকার গড়ার যে বার্তা দেয়া যেতো, তা সম্ভব হয়নি। এই হতাশাই বহু বাম সমর্থকে পদ্মমুখী করে তুলেছে। ৩. একের পর এক নির্বাচনে ব্যর্থ বাম নেতৃত্বের কোনও নিয়ন্ত্রণ কর্মী-সমর্থকদের উপরে কাজ করেনি। তারাই এবার তৃণমূলকে শিক্ষা দেবেন, বিজেপি নেতৃত্বের এই প্রচারে বরং বাম কর্মী-সমর্থকেরা বেশি ভরসা রেখেছেন! ভাঙা সংগঠন নিয়েও যতোটুকু কাজ করা যায়, তার বেশিরভাগটাই তলে তলে গেরুয়া শিবিরের পক্ষে গেছে। তথ্য সূত্র : আনন্দবাজার। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]