বৈশ্বিক দুর্নীতি বিস্তারে নীরবে সহায়তা করছে কানাডা

আমাদের নতুন সময় : 26/05/2019

নূর মাজিদ : সারা বিশ্বের কাছে কানাডার একটি দুর্নীতিবিরোধী পরিচ্ছন্ন ইমেজ রয়েছে। আর এটা ধরে রাখতে দেশটির সরকারেরও উদ্যোগের অভাব নেই। এই সরকার জাতিগত বিদ্বেষের সময়ে সম্প্রীতির কথা বলে, শরণার্থীদের আশ্রয় দেয়। আবার বৈশ্বিকভাবে দুর্নীতি নির্মূলে সহায়তা জোরদার করার অঙ্গিকারও দেয়। এটা ধারাবাহিকভাবে সব সরকারের আমলেই হয়ে আসছে। তবে আসল সত্য হলো এই মুখোশের আড়ালে কানাডার অন্ধকার দিকটি ঢাকা পড়েছে। সেটা হলো বিশ্বব্যাপী দুর্নীতিবাজ ব্যক্তি এবং সংস্থাকে প্রণোদনা দেয়ার নীতি। এসব তথ্য টিআইসির ২০১৮ সালের প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে জানান জেমস কোহেন । তিনি  ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল কানাডা বা টিআইসির প্রধান পরিচালক। প্রতিবেদনটি চলতি মাসেই প্রকাশ করা হয়। সূত্র : দ্য গ্লোব অ্যান্ড মেইল

জেমস কোহেন বলেন, গত কয়েক মাসে এমন অনেক ধনাঢ্য কানাডীয় নাগরিকের পরিচয় ফাঁস হয়েছে, যারা বৈশ্বিক দুর্নীতিতে জড়িত অনেক সরকার এবং সংস্থার সঙ্গে বাণিজ্যিক স¤পর্ক রক্ষা করে চলেন। আবার অফশোর বা করস্বর্গে নিবন্ধিত বেনামি কো¤পানিগুলোর সঙ্গেও তাদের ব্যবসায়িক আঁতাত বেশ শক্তিশালী। এইক্ষেত্রে সরকারের নীরবতা, সারা বিশ্ব থেকে অবৈধ অর্থ নিরাপদ বিনিয়োগের নিরাপদ উৎস করে তুলেছে কানাডাকে।

২০১৮ টিআইসি প্রতিবেদনের শিরোনাম ছিলো ‘এক্সপোর্টিং করাপশন’ অর্থাৎ কানাডা যেভাবে দুর্নীতি উৎসাহে অবদান রাখছে সেটাই ছিলো মূল গবেষণার বিষয়। প্রতিবেদনে প্রকাশ, উন্নত দেশগুলোর জোট ওইসিডিতে থাকলেও সংস্থাটির অনেক নীতি মেনে চলেনা কানাডা। বিশেষ করে, বিদেশের সরকারি কর্মচারীদের ঘুষ দেয়া বন্ধে ওইসিডির যে নীতিমালা রয়েছে তা মোটেই অনুসরণ করছেনা দেশটি। ওইসিডি জানায়, ২০১৫ সালে মোটামুটিভাবে হলেও এই নীতিমালা অনুসরণ করতো কানাডা। ২০১৮ সালে এসে যেটা একদম সীমিত হয়ে এসেছে।

সম্প্রতি, কানাডীয় কো¤পানি এসএনসি-লাভালিন কতৃক লিবিয়ার সরকারি কর্মকর্তাদের ঘুষ দেয়ার সংবাদ বিশ্ব গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়েছে। একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের দুর্নীতিবাজ সরকারি কর্মচারীদের এভাবে ঘুষ দিয়ে কানাডীয় কো¤পানিটি নিজ দেশের বিচার ব্যবস্থার যে বিশাল ফাঁক রয়েছে সেই দিকটির দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। প্রচলিত আইনে এই ধরনের কাজের শাস্তি নিশ্চিত না করার মাধ্যমেই দেশটির সরকার এই সুযোগ করে দিচ্ছে। অবস্থা এতটাই নগ্ন যে, এখন বিশ্বব্যাংক কানাডার বোম্বারডিয়ার এয়ারলাইন্সের বিরুদ্ধে আজারবাইনে আরেকটি দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করছে।

টিআইসি প্রতিবেদন আরো জানায়, দুর্নীতির সূচকে যেসব দেশের অবস্থান খুবই নিচের দিকে তাদের সঙ্গে এই ধরনের স¤পৃক্ততাকে ছোট করে দেখার কোন সুযোগ নেই। এই ধরনের লিয়াজো পরবর্তীতে দুর্নীতির অর্থ কানাডায় পাচারের পথও নিশ্চিত করে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]