• প্রচ্ছদ » গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ » সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বললেন, মৌলিক যোগ্যতায় ঘাটতি থাকায় প্রশিক্ষণ নেয়ার পরও সৃজনশীল পদ্ধতিতে প্রশ্নপত্র তৈরি করতে পারছেন না শিক্ষকরা


সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বললেন, মৌলিক যোগ্যতায় ঘাটতি থাকায় প্রশিক্ষণ নেয়ার পরও সৃজনশীল পদ্ধতিতে প্রশ্নপত্র তৈরি করতে পারছেন না শিক্ষকরা

আমাদের নতুন সময় : 26/05/2019

আমিরুল ইসলাম : সৃজনশীল শিক্ষা পদ্ধতিতে প্রশিক্ষণ পেয়েও শিক্ষকদের একটি বড় অংশ সৃজনশীল প্রশ্ন প্রণয়ন করতে পারছেন না। প্রশিক্ষণ নিয়ে অনেকে সৃজনশীল বিষয় চর্চা করছেন না। সব শিক্ষকই সৃজনশীল বিষয়ে বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ পেয়েছেন। প্রশিক্ষণ পাননি এমন শিক্ষক এখন খুঁজে পাওয়া যাবে না। আবার নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের সক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও অর্থের বিনিময়ে বাইরে থেকে প্রশ্নপত্র সংগ্রহ করছে অনেক প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে সাড়ে ১৩ শতাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাজার থেকে কেনা প্রশ্নপত্র দিয়ে বার্ষিক, অর্ধবার্ষিক ও অন্যান্য একাডেমিক পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। এতে শিক্ষকদের সৃজনশীল চর্চা থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। এমনটা কেন করা হচ্ছে এবং এ সমস্যা সমাধানের উপায় কি জানতে চাইলে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বললেন, মৌলিক যোগ্যতায় ঘাটতি থাকার কারণে প্রশিক্ষণ নেয়ার পরও সৃজনশীল পদ্ধতিতে প্রশ্নপত্র তৈরি করতে পারছেন না শিক্ষকরা।

তিনি বলেন, এসব শিক্ষকদের যখন নিয়োগ করা হয় তখন নিয়োগ প্রক্রিয়াটি সঠিক হয়নি। উপরন্তু যথার্থ বা পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ হয়নি বলেই তারা প্রশিক্ষণ কাজে লাগাতে পারছেন না। প্রশিক্ষণে ত্রুটি থাকার কারণেই প্রশিক্ষণ কাজে লাগছে না। বাইরে থেকে প্রশ্ন কিনে পরীক্ষা নেয়া, এটা একেবারে সরাসরি একটি দুর্নীতি। শিক্ষা খাত চরম দুর্নীতিপূর্ণ। এ দুর্নীতির ব্যাপারে সরকার কতোটুকু সজাগ রয়েছে সেটা জানা নেই। শিক্ষা খাতে দুর্নীতির  ব্যাপারে সরকারকে সজাগ হতে হবে এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। শিক্ষা ব্যবস্থা সঠিক করতে চাইলে বা সুশিক্ষা চাইলে সুশিক্ষক অনিবার্য। রাজনৈতিক বিবেচনায় অযোগ্য ব্যক্তিকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হলে তার দ্বারা কিছুই হবে না। বাংলাদেশে বর্তমানে শিক্ষা ব্যবস্থায় রাজনীতিকরণ করা হয়েছে। শিক্ষা প্রশাসন এবং শিক্ষা ব্যবস্থাপনায় প্রাথমিক থেকে সর্বোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত রাজনীতি ছড়িয়ে পড়েছে। যোগ্যতা, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার কোনো বিবেচনায় নেয়া হয় না। প্রাথমিক পর্যায়ে শিক্ষা ব্যবস্থা যদি ধসে যায় তাহলে গোটা শিক্ষা ব্যবস্থা ধসে যাবে বলে আমার আশঙ্কা।

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]