• প্রচ্ছদ » » প্রায় সব কিছুতে ভেজাল, তবু বেঁচে আছি, এটা কি অষ্টম আশ্চর্য নয়!


প্রায় সব কিছুতে ভেজাল, তবু বেঁচে আছি, এটা কি অষ্টম আশ্চর্য নয়!

আমাদের নতুন সময় : 03/06/2019

মুরসালিন আহমেদ

সকালে ঘুম থেকে উঠে কলগেট পেস্ট নিলাম, তার মধ্যে ক্যান্সারের উপাদান। তারপর নাস্তায় পরোটা খাইলাম। এর মধ্যে অ্যামোনিয়ার তৈরি সল্ট মিশানো। কলা খাইলাম কার্বাইড দিয়ে পাকানো। কফি নিলাম, তেঁতুলের বিচির গুঁড়া মেশানো! তারপর বাজারে গেলাম টাটকা শাকসবজি কিনলাম, কপার সালফেট ছিটিয়ে সতেজ করা, হাইব্রিড সার দিয়ে ফলানো! মসলা আর হলুদের গুঁড়া নিলাম, লেড এবং ক্রোমাইট কেমিক্যাল মিশানো। গরমের দিন বাসায় এসে তরমুজ খাইলাম… পটাশিয়াম পারম্যাংগানেট দিয়ে লাল করা। আম এবং লিচু খেলাম, কার্বাইড দিয়ে পাকানো এবং ফরমালিন দিয়ে সংরক্ষিত! দুপুরে ভাত খাবো, ইউরিয়া দিয়ে সাদা করা!
মুরগি নিলাম প্লেটে, ক্রমাগত এন্টিবায়োটিক দিয়ে বড় করা। সয়াবিন তেলে রান্না সব… ভেতরে অর্ধেক পাম অয়েল মেশানো। খাওয়ার পর মিষ্টি জিলাপি নিলাম, পোড়া মবিল দিয়ে মচমচে করা। আর রমজান মাসে সন্ধ্যায় রুহ আফজা নিলাম, কেমিকেল আর রং ছাড়া কোনো পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়নি পরীক্ষায়। খেজুর খাইলাম, বছরের পর বছর স্টোরেজে ফরমালিন দিয়ে রেখেছিলো। সরিষার তেল দিয়ে মুড়ি মাখানো খাইলাম… মুড়ি ইউরিয়া দিয়ে ফুলানো আর সাদা করা এবং সরিষার তেলে ঝাঁঝালো কেমিক্যাল মেশানো। ঘুমানোর আগেও বাদ যাবে না। গরম দুধ আর হরলিক্স খাইলাম, গাভীর পিটুইটারি গ্রন্থিতে ইঞ্জেকশন দেয়ার পর অতিরিক্ত দুধ দোয়ানো হয়, এরপর ইউরিয়া মেরে সাদা করা হয়। আর হরলিক্সে পরীক্ষা করে কেমিকেল ছাড়া কোনো পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়নি। এতো ভেজাল খেয়ে দু-একটা ঔষধ না খেলে তো শরীর টিকবে না। ৭০ শতাংশ ঔষধ কোম্পানি দেশে মানসম্মত ঔষধ তৈরি করে না। ক্ষোভে-দুঃখে বিষ খেয়ে যে মইরা যামু তাও পারি না, পত্রিকা মারফত জানলাম বিষেও ভেজাল! আসল কথা হইল মানুষের ঈমান নাই। দুর্নীতির ভেতরেও এরা দুর্নীতি করে। বেঁচে আছি এটাই তো অষ্টম আশ্চর্য… কীভাবে এর থেকে মুক্তি পাবো মাননীয় স্পিকার। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান
বার্তা ও বাণিজ্য বিভাগ ঃ ১৯/৩ বীর উত্তম কাজী নুরুজ্জামান সড়ক , পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
ছাপাখানা ঃ কাগজ প্রেস ২২/এ কুনিপাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকা ,ঢাকা -১২০৮
ই- মেইল : [email protected]